28 C
আবহাওয়া
১১:৪৯ অপরাহ্ণ - জুলাই ২২, ২০২৪
Bnanews24.com
Home » নামজারি: কর্ণফুলীতে ভয়ানক প্রতারক চক্র

নামজারি: কর্ণফুলীতে ভয়ানক প্রতারক চক্র


বিএনএ, চট্টগ্রাম : চট্টগ্রামের কর্ণফুলীতে লন্ডন ভিত্তিক একটি অ্যাপস থেকে কিউআরকোড বসিয়ে নকল ওয়ারিশ সনদ নিয়ে তা উপজেলা ভূমি অফিসের নামজারিতে সরবরাহ করার অভিযোগ উঠেছে পাঁচ জনের একটি প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে।

প্রতারক চক্রটি শিকলবাহা ইউনিয়ন পরিষদের একটি প্রকৃত ওয়ারিশ সনদ সংগ্রহ করে তাঁতে ওয়ারিশ সংখ্যা বৃদ্ধি করে পুনরায় কিউআরকোড বসিয়ে আনুমানিক ২০-২৫ লাখ টাকার জমির খতিয়ান পেতে নয়-ছয় করেছেন বলে অভিযোগ উঠে। কিন্তু এসিল্যাণ্ডের বিচক্ষণতায় তাদের জাল জালিয়াতি ধরা পড়ে।

এদের মধ্যে তিন জন মহিলা আর দুজন পুরুষ। এরা সকলের নামে সম্প্রতি জমিটি ই-নামজারি পেতে কর্ণফুলী উপজেলা ভূমি অফিসে আবেদন করেছেন বলে নিশ্চিত করেন উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) পিযুষ কুমার চৌধুরী।

ঘটনা সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি শিকলবাহা ইউনিয়নের প্রধান সড়কের পাশের একটা জমি পাঁচ জনের নামে নামজারি করার জন্য আবেদন পড়ে। জমির নামজারি আবেদনের (৫০৫২) সাথে শিকলবাহা ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন ভূঁইয়া ওই চক্রের দেওয়া দুটি ওয়ারিশ সনদে নিজ দপ্তরের সিল স্বাক্ষর করে সত্যায়িত করে উপজেলায় প্রস্তাব পাঠান।

কিন্তু ফাইলটি এসিল্যাণ্ডের সামনে আসলে সন্দেহ সৃষ্টি হয়। তিনি কিউআরকোডটি স্ক্যান করে দেখেন। এতেই এসিল্যাণ্ডের সামনে জালিয়াতির চিত্র নজরে পড়ে। কেননা, স্বভাবতই ইউনিয়ন পরিষদ যে ওয়ারিশ সনদগুলো সরবরাহ করে থাকেন। সে সব সনদের কিউআরকোড স্ক্যান করলে প্রত্যয়ন লিঙ্ক প্রবেশ করবে এক্সপ্লোর আইটি কারিগরি সহযোগিতায় নির্মিত সনদ-প্রত্যয়ন ব্যবস্থাপনা সিস্টেম প্রত্যয়ন ওয়েব সাইটে।

যেখানে স্পষ্টভাবে কর্ণফুলী ডট ওআরজি ওয়েব সাইট লিখা আসবে। কিন্তু প্রতারক চক্রের সরবরাহ করা ওয়ারিশ সনদের কিউআরকোড স্ক্যান করলে লিঙ্ক নিয়ে যায় লন্ডনের মি-কিউআর ডটকমে। আর যে ফটোকপি ওয়ারিশ সনদে কিউআরকোড বসানো হলো, তাতে ওয়ারিশ দেখা মিলে পাঁচ জনের। কিন্তু কোড স্ক্যান করলে যে লিঙ্কে সনদ উপস্থাপিত হয় সেখানে দেখা মিলে সাত জন ওয়ারিশ।

এতে দুই সনদে দুই ধরনের তথ্য। আরেক সনদে অর্ধেক কিউআরকোড। সহকারি কমিশনারের চোখে এসব নানা অসঙ্গতি নজরে আসে। পরে তিনি ওয়ারিশ সনদ দুটির বিষয়ে সত্যতা জানতে শিকলবাহা ইউপি চেয়ারম্যান এর কাছে একটি চিঠি প্রেরণ করেন।

যে চিঠিতে তিনি উল্লেখ করেন, ‘চলমান নামজারি মামলা নম্বর ৫০৫২/২৩-২৪। এতে আবেদনকারী শিকলবাহা আলম মেম্বার বাড়ীর হোছনেয়ারা বেগম, দিদারুল ইসলাম লিটন, নারগিছ আকতার মুক্তা, সাতকানিয়া মাইজপাড়ার ফারজানা আক্তার পুতুল, জাহেদুল ইসলাম নামজারির আবেদন করেন।

আবেদনকারীগণ গত ২৭ ফেব্রুয়ারী তারিখের ১০২০৩৯ নম্বর ওয়ারিশ সনদ মূলে ইস্যুকৃত শিকলবাহার মোহাম্মদ মিয়া স্যারাং এর ছেলে নুর মোহাম্মদের একটি ওয়ারিশ সনদ দাখিল করেন। একই তারিখের ১০০৩১৪ নং সনদমূলে আরেকটি ওয়ারিশ সনদে শিকলবাহার আবদুল ছৈয়দের ছেলে নুর মোহাম্মদ এর ওয়ারিশ সনদ দাখিল করেন।

কিন্তু কিউআর কোড স্ক্যানিং এর মাধ্যমে যাচাই করতে গেলে ওয়ারিশসনদ সমূহে গরমিল লক্ষ্য করা যায়। সুতরাং দাখিলকৃত ওয়ারিশ সনদ সমূহের সঠিকতা ও সত্যতা যাচাইপূর্বক ৩ দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন প্রেরণে ইউপি চেয়ারম্যানকে অনুরোধ জানান কমিশনার।’

চিঠির প্রতি উত্তরে শিকলবাহা ইউনিয়ন পরিষদ জানান, ‘শিকলবাহা এলাকার আলম মেম্বার বাড়ীর মোহাম্মদ হারুন ও নুর মোহাম্মদ বিগত ২৭ ফেব্রুয়ারী ইস্যুকৃত স্মারক নং-১০২০৩৯ ও ১০০৩১৪ ওয়ারিশ সনদ দুইটির মধ্যে প্রথমটি সঠিক ও দ্বিতীয়টি সঠিক নয়।’

পরিষদ লিখিত ভাবে আরও জানিয়েছেন, ‘গত ২৭ ফেব্রুয়ারীতে ইস্যুকৃত ১০২০৩৯ স্মারকের ওয়ারিশ সনদটি তাঁর পরিষদ থেকে ইস্যু করা হয়। আর একই তারিখ দেখানো ১০০৩১৪ স্মারকের সনদটি পরিষদ থেকে ইস্যু করা হয়নি। যেটি, ছিলো নকল।’

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শিকলবাহা ইউপি সচিব আব্দুল কাইয়ুমও। কিন্তু লক্ষ্যণীয় বিষয় হলো, তিনটি সনদের নিচে স্পষ্ট ভাবে লিখা রয়েছে স্থানীয় ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল্লাহ আল মামুনের তদন্ত ও সুপারিশক্রমে উক্ত ওয়ারিশ সনদ সুপারিশ করা হলো।

এ বিষয়ে তিনটি সনদ দেখে শিকলবাহার ইউপি সদস্য আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘তিনটি ওয়ারিশ সনদ নকল। তিনি কোন এ ধরনের ওয়ারিশ সনদ কাউকে দেননি। বরং তিনি নুর মোহাম্মদ এর একটি ওয়ারিশ সনদ তাঁর ছেলে সোলায়মান কে প্রদান করেছেন। যার স্মারক নম্বর ছিলো-১০৫২২১। তাতে স্ত্রী, পুত্র ও কন্যা মিলে ওয়ারিশ ছিলো মোট ৯ জন।’

পরে শিকলবাহা ইউপি সচিব আব্দুল কাইয়ুমের সাথে পুনরায় যোগাযোগ করে জানতে চাওয়া হয় প্রকৃত ওয়ারিশ সনদ অনলাইন সার্ভারে কোনটি রয়েছে। সচিব বলেন, ‘পরিষদ যে সনদটি ইস্যু করেছে তার স্মারক হলো-১০২০৩৯। যেখানে ওয়ারিশ রয়েছে পাঁচ জন।’

পরে ইউপি সচিবকে জানানো হয় এ ধরনের কোন সনদ ইউপি সদস্য আব্দুল্লাহ আল মামুন কাউকে প্রদান করেনি বলে আমাদের জানিয়েছেন। তার উত্তরে শিকলবাহা ইউপি সচিব আব্দুল কাইয়ুম বলেন, ‘আমরা মহিলা মেম্বারের স্বাক্ষর নিয়ে ১০২০৩৯ সনদটি দিয়েছি।’ এর জবাবে তাঁকে আবারো জানানো হয়। তাহলে ওই সনদে মহিলা মেম্বারের স্বাক্ষর নেই কেন? তখন ইউপি সচিব কোন সদুত্তর দিতে পারেনি।

সচিবের মন্তব্যটি পুনরায় ইউপি সদস্য আব্দুল্লাহ আল মামুনকে জানালে তিনি বলেন, মহিলা সদস্যরা ওভাবে ওয়ারিশ সনদ দিতে পারে না।’ ওদিকে, বিষয়টি জেনে অবাক হন সহকারি কমিশনার ভূমি। কেননা, সনদ জালিয়াতি ঠেকাতে কর্ণফুলীর পাঁচ ইউনিয়নে কিউআরকোড সম্বলিত সনদ দেওয়ার প্রচলন শুরু করলেও হঠাৎ নকল কিউআরকোড যুক্ত সনদ দেখে আশ্চর্য হন তিনি।

এসব তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে প্রতিবেদকের অনুসন্ধানে উঠে আসে, শিকলবাহা ইউনিয়ন পরিষদ ১০২০৩৯ নম্বর স্মারকে নুর মোহাম্মদ এর সনদে ওয়ারিশ ছিলেন পাঁচ জন। এক স্ত্রী, তিন পুত্র ও এক কন্যা। কিন্তু নকল কিউআরকোড বসানো একই সনদে একই স্মারক বসিয়ে ওয়ারিশ সৃষ্টি করেছেন সাত জন। এতে নুর মোহাম্মদ এর দুই পুত্র মোহাম্মদ খোরশেদ আলম ও মোহাম্মদ নাছের কে হারুনের পুত্র হিসেবে দেখানো হয়েছে। কিন্তু এরা দুজন হারুনের পুত্র নয়।

অনুসন্ধানে আরো চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসে, প্রতারক চক্রটি প্রকৃত সনদে মিথ্যা দুই ওয়ারিশের নাম বর্ধিত করে ইউনাইটেড কিংডম অব লন্ডনের সেভেন বেল ইয়ার্ড এলাকার মি-টিম লিমিটেড কোম্পানির ‘মি-কিউআর জেনারেটর’ অ্যাপসে প্রবেশ করে নকল সনদে কিউআরকোড যুক্ত করেছেন।

এমন কি প্রতিবেদক লন্ডন ভিত্তিক অ্যাপসটির জনসংযোগ কর্মকর্তা আলেক্সান্ডার এর সাথে যোগাযোগ করে জানতে পারেন, প্রতিষ্ঠানটি মূলত যোগাযোগের তথ্য, ওয়াইফাই প্রশংসাপত্র, সনদ, মানচিত্র, সামাজিক নেটওয়ার্কগুলির লিঙ্ক শেয়ার করতে কিউআরকোড স্থাপনে কাজ করেন।

২০২১ সাল থেকে কোম্পানিটি কিউআরকোড জেনারেটর টুলের মাধ্যমে আদান প্রদান করেন। অ্যাপসটি মাসে ১ কোটি ৪০ লাখ মানুষ ব্যবহার করেন। এই অ্যাপসে প্রবেশ করে মাত্র কয়েক মিনিট বা সেকেন্ডের মধ্যে কোড তৈরি করে দেন কোম্পানিটি।

এমন কি প্রতিবেদক অনলাইনে কোম্পানিটির সিইও ইভান মেলনিচুক কে নকল ওয়ারিশ সনদটি পাঠিয়ে যোগাযোগ করে জানতে চান, কখন কে বা কারা তাঁদের অ্যাপস থেকে কিউআরকোড বসিয়ে শিকলবাহার কথিত ওয়ারিশ সনদটি তৈরি করেছেন।

জবাবে লন্ডন থেকে ইভান মেলনিচুক জানিয়েছেন, ‘গত এক মাস আগে মেইল এড্রেস কিংবা মোবাইল নম্বর যুক্ত না করেই সরাসরি ওয়েব সাইট থেকে তাঁদের কিউআরকোড বসিয়ে সনদটি তৈরি করে নিয়েছিলো চক্রটি।’

শিকলবাহা ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন ভূঁইয়ার কাছে সরাসরি জানতে চাওয়া হয়, যে দুটি ওয়ারিশ সনদে তিনি সিল স্বাক্ষর দিয়ে সত্যায়িত করেছিলেন সেটির কিউআরকোড যাচাই-বাছাই করে সত্যতা পেয়েছিলেন কিনা? প্রতি উত্তরে শিকলবাহার তহসিলদার জসিম উদ্দিন ভূইয়া বলেন, ‘এসব ওয়ারিশ সনদ সঠিক ছিলো তাই সিল স্বাক্ষর করেছি।’ অথচ সনদ যিনি ইস্যু করেছেন সেই ইউপি চেয়ারম্যান জানালেন সম্পূর্ণ বিপরীত। আর ইউপি সদস্যও বলেছেন ভিন্ন কথা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিকলবাহা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘উপজেলা ভূমি অফিসকে চিঠি দিয়ে আমরা জানিয়েছি, দুটি ওয়ারিশ সনদ থেকে একটি ছিলো আমাদের ইস্যুকৃত আসল সনদ অন্যটি সঠিক নয়।’

এ প্রসঙ্গে কর্ণফুলী উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) পিযুষ কুমার চৌধুরী বলেন, ‘সাধারণত ওয়ারিশ সনদ যাচাই লিঙ্ক আসবে প্রত্যয়ন ওয়েব সাইট থেকে। কখনো মি-কিউআর থেকে আসবে না। তা ছাড়া আমি নিশ্চিত ছিলাম এটি নকল সনদ। শিকলবাহা ইউনিয়ন পরিষদও জানিয়েছেন ওটা সঠিক নয়। এমনকি এ ধরনের কোন সনদ তাঁদের পরিষদ থেকে ইস্যু করা হয়নি। করেছেন একটি। সুতরাং বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

বিএনএনিউজ২৪ডটকম/ ওজি/ হাসনা

Loading


শিরোনাম বিএনএ