Bnanews24.com
Home » যে কারণে ২০বছরেও আফগানিস্তানে শান্তি স্থাপনে ব্যর্থ মার্কিনবাহিনী
প্রবন্ধ সব খবর

যে কারণে ২০বছরেও আফগানিস্তানে শান্তি স্থাপনে ব্যর্থ মার্কিনবাহিনী

আফগানিস্তানের আজকের খবর(২৯ আগস্ট)

তালেবান বা তালিবান। মোল্লা ওমর সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা। ২০১৬ সাল থেকে মৌলভি হাইবাতুল্লাহ আখুন্দজাদা তালেবানদের প্রধান ধর্মীয় নেতা।‌ এই দলটি ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আফগানিস্তান শাসন করে। ১৯৯৪ সালে আফগান গৃহযুদ্ধের অন্যতম প্রধান দল হিসেবে তালেবানের আবির্ভাব ঘটে। এই দলটি মূলত পূর্ব ও দক্ষিণ আফগানিস্তানের পশতুন এলাকার ছাত্রদের (তালিব) নিয়ে গঠিত হয় যারা ঐতিহ্যবাহী ইসলামি বিদ্যালয়ে শিক্ষা লাভ করেছিলো এবং সোভিয়েত–আফগান যুদ্ধের সময় যুদ্ধে অংশ নিয়েছিল। দলটির নেতৃত্বে ১৯৯৬ সালে আফগানিস্তান ইসলামি আমিরাত প্রতিষ্ঠিত হয় এবং আফগান রাজধানী কান্দাহারে স্থানান্তরিত হয়। ১১ সেপ্টেম্বরের হামলার পর ২০০১ সালের ডিসেম্বরে আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে আক্রমণের পর ক্ষমতাচ্যুত না হওয়া পর্যন্ত দেশের বেশিরভাগ অংশ তালেবানের নিয়ন্ত্রণে ছিল।

আফগান তালেবানরা বার বার বলছেন, আগেরকার শাসন আর বর্তমান তালেবানের মধ্যে আকাশ পাতাল ব্যবধান হবে। বর্তমান তালেবানরা অনেক উদারপন্থী। কিন্ত আফগান জনগন তা কোনভাবে বিম্বাস করতে চায় না। নারীদের প্রতি তালেবানের অতীতের আচরণ ও বিচার ব্যবস্থা তারা ভুলতে পারছে না। সে জন্য অধিকাংশ আফগান ভীতসন্ত্রস্থ। ফলত: কয়েকলাখ আফগান সপরিবারে এককাপড়ে দেশ ছেড়েছে। এমনিতে আফগানিস্তান বিশ্বের অন্যতম দরিদ্র দেশ।

যুদ্ধ এবং করোনা সংক্রমন দুটি মিলে আফগানদের আরও দারিদ্রতার দিকে ঠেলে দিয়েছে। প্রায় চার কোটি জনসংখ্যার দেশ আফগানিস্তান। দেশটিতে এখন চলছে ব্যাপক খাদ্য সংকট। চিকিৎসা সামগ্রির তীব্র সংকট।

এক আফগান তরুণ সাংবাদিক লিখেছেন, গত ২০বছর ধরে কেবল যুদ্ধই দেখেছি। একটি দিনও যুদ্ধ ছাড়া এ দেশ ছিল না। তালেবানদের আফগানিস্তান দখলের পর এই সাংবাদিক প্রাণ বাঁচাতে এখন স্পেনে আশ্রয় নিয়েছে।

যুদ্ধ হল আর থেমে গেল। এটাতো না।  এতে থাকে দ্বন্দ্বের ঝুঁকি এবং হিংসাত্বক পরিণতি জড়িত। যুদ্ধের পরিণতি সাধারণত ভয়াবহ। আন্তরাজ্য হোক বা প্রদেশ প্রদেশ হোক। যুদ্ধ শেষ হলে প্রথম পরিণতি হয় ব্যাপক নৈরাজ্য।

বাংলার শাসক রাজা লক্ষণ সেনের মত মার্কিন সরকার সমর্থিত আফগান সরকারের প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির রাতের অন্ধকারে পালানোর ঘটনা এটা স্পষ্ট করে যে, পুরো আফগানিস্তানে তার নিয়ন্ত্রণ, যে কোন বহি শত্রুর আক্রমন প্রতিরোধ ক্ষমতা কোনটাই তার ছিল না।

আরো পড়ুন : সেনাবাহিনী নয়, রাজনীতি ফেল মেরেছে আফগানিস্তানে-সাবেক সেনা প্রধান জিয়া

আজকের আফগানিস্তানে ঠিক এটাই ঘটছে। আফগান যুদ্ধ এবং এর অপমানজনক পরিণতি থেকে পাঁচটি শিক্ষা নিতে পারে জনগন :

  ১.    নিরাপত্তা:

কাবুলের ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড দ্যা লেভেন্ট-খোরাসান প্রদেশ (আইএসআইএল-কেপি) কর্তৃক হামিদ কারজাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আত্মঘাতী বোমা হামলা এই মুহূর্তে আফগানিস্তানের দুর্বল নিরাপত্তা কাঠামোর কথা বলে।

২০২১ সালের ১৫ আগস্ট মার্কিন ও ন্যাটো সেনা এবং তাদের মিত্রদের বিশৃঙ্খল প্রস্থান চলাকালীন একটি চরমপন্থী জঙ্গি সংগঠন বিদেশী শক্তির বিরুদ্ধে জয়লাভ করতে পারে যুদ্ধের বছর। বিজয়ী হিসেবে আবির্ভূত হওয়ার পরও, তালেবানরা এখনও আইএসআইএল-কেপি বা গোষ্ঠীগুলিকে একইভাবে মোকাবেলা করার জন্য সজ্জিত এবং প্রশিক্ষিত নয়। গত ২০ বছর আফগান যুদ্ধের সময় আমেরিকা আফগান বাহিনীকে যে অস্ত্র ও যানবাহন সরবরাহ করেছে কিন্তু তালেবানরা রাষ্ট্রের একটি অত্যাধুনিক সামরিক বাহিনী হিসেবে প্রশিক্ষিত নয় যার জন্য কয়েক বছর দক্ষতা, প্রশিক্ষণ, জ্ঞান এবং কৌশলগত শিক্ষা পেতে তাদের সময় লেগে যাবে। এ  সময় দেশটির সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা একটি চ্যালেঞ্জিং বিষয়।

২. যুদ্ধ-পরবর্তী কৌশল:

একটি দক্ষ এবং কার্যকর কৌশল যুদ্ধের অবাঞ্ছিত ফলাফল চিহ্নিত করে এবং উদ্ভূত হুমকি মোকাবেলা করার উপায়গুলি সুস্পষ্টভাবে মোকাবেলা করার পরামর্শ দেয়। যদি আপনি তাদের পরাজিত করতে না পারেন, একটি হাইব্রিড সরকার চালানোর জন্য তাদের অন্তর্ভুক্ত করুন। আফগান যুদ্ধ নৈরাজ্যে শেষ হয়েছিল। স্টেকহোল্ডাররা আশঙ্কা করেছিলেন যে এই নৈরাজ্যকর পরিণতি এখনও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ‘সুন্দর’ প্রস্থান এবং আফগানদের বৃহত্তর কল্যাণের জন্য কোন প্রক্রিয়া তৈরি করেনি। আফগান ন্যাশনাল ডিফেন্স অ্যান্ড সিকিউরিটি ফোর্সেস (এএনডিএসএফ) এর উন্নয়ন ও প্রশিক্ষণের জন্য যুক্তরাষ্ট্র ৮৩ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করেছে। তারা ১০ ​​বিলিয়ন ডলার মূল্যের আধুনিক বিমান ও যানবাহন সরবরাহ করেছে, ANDSF- কে ১৩০ টি যুদ্ধ বিমান দিয়েছে এবং প্রত্যাহারের পরেও আরও সরবরাহের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

আফগানিস্তানে ভারতের ভূমিকা

ভারত জাতি-নির্মাণ, পুনর্গঠন, দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য এবং ANDSF- এর সক্ষমতা বৃদ্ধিতে ব্যাপক বিনিয়োগ করেছে। ইন্ডিয়া টুডের মতে, ভারত তিন বিলিয়ন ডলার ব্যয় করেছে, ২০১১ সালে ভারত-আফগানিস্তান কৌশলগত অংশীদারিত্ব স্বাক্ষর করেছে, সমস্ত প্রদেশে infrastructure০০ অবকাঠামো প্রকল্পে বিনিয়োগ করেছে। আফগানিস্তান, নৃশংস যুদ্ধ এবং সহিংসতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, এখনও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ভারতের কাছ থেকে প্রশিক্ষণ এবং তহবিল গ্রহণ করছিল; এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন, জার্মানি এবং অন্যান্য অনেক দেশ পুনর্গঠন এবং শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য। তবুও মনে হয় নিরাপত্তা বিনিয়োগ যথেষ্ট ছিল না এবং তাই তালেবানরা কাবুল এবং আফগানিস্তানের প্রধান প্রদেশ দখল করার কয়েক দিনের মধ্যেই রাজধানীর পতন ঘটেছে।

বখতিয়ার খলজি যাকে ‘মালিক গাজি ইখতিয়ার উদ্দিন মুহাম্মদ বখতিয়ার খলজি  মাত্র ১৭জন সৈন্য নিয়ে তৎকালীন বাংলার রাজা লক্ষণ সেন এর রাজধানী নদীয়া আক্রমন করলে,  লক্ষণ সেন দিগ্বিদিক হারিয়ে ফেলে প্রাসাদের পেছনের দরজা দিয়ে নৌপথে বাংলাদেশের দিকে পালিয়ে যান।বখতিয়ার খলজি  একজন ঘুরি এবং আফগান সেনাপতি ও প্রাথমিক দিল্লি সুলতানাত সৈনিক জেনারেল ছিলেন এবং প্রথম মুসলিম যে বাংলা ও বিহার জয় করেছিলেন। সূত্র: ইউকিপিডিয়া।  সদ্য দেশত্যাগী আফগান রাষ্ট্রপতি আশরাফ গণির পরিণতি অনেকটা রাজা লক্ষণ সেনের মতই।

Afghan National Defense and Security Force (ANDSF)

কী এমন ভুল হয়েছে যে ANDSF তালেবানদের মুখোমুখি হতে পারেনি? এটি ছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, ইইউ এবং অনেক স্টেকহোল্ডারের যুদ্ধ-পরবর্তী কৌশল।  যা অপর্যাপ্ত-বরং দরিদ্র-যা আফগানিস্তানের পরিস্থিতি ১৫ আগস্ট, ২০২১ এ মোকাবিলা করতে পারেনি। এটি একটি কার্যকর বহুমুখী কৌশল হতে পারে। বৈধ সরকার এবং বিদ্রোহী/জঙ্গি উভয়ই একসাথে। আশরাফ গনির সরকারকে দুর্নীতিবাজ হিসেবে দেখা হয়। যে দেশটি ১৯৭৯ সাল থেকে একটানা যুদ্ধ করছে আমরা তার কাছ থেকে কী আশা করব? না তালেবানকে পরাজিত করতে যুক্তরাষ্ট্র সামাল দেয়নি, না আফগান শান্তি প্রক্রিয়া ২০২০-এর সময় তাদের সঙ্গে পর্যাপ্ত আস্থা গড়ে তুলেছিল তাৎক্ষণিক প্রত্যাহার-পরবর্তী নৈরাজ্য নিয়ে আলোচনা ও ব্যবস্থাপনা করার জন্য। এই ক্ষেত্রে যুদ্ধ এবং কূটনীতি মারাত্মকভাবে ব্যর্থ হয়েছে।

তালেবান দখল করার মুহূর্তে ভারত পালিয়ে যায়

ভারতের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। পেন্টাগনের প্রেস সেক্রেটারি জন কিরবি ২০২১ সালের ১০ আগস্ট আফগানিস্তানে ভারতের ‘গঠনমূলক ভূমিকার’ প্রশংসা করেছেন। ভারত অবশ্যই ভূমিকা পালন করেছে। এটি পরিকাঠামোর উন্নয়ন করেছে। এটি একটি ‘আফগান নেতৃত্বাধীন, আফগান-মালিকানাধীন এবং আফগান-নিয়ন্ত্রিত জাতীয় শান্তি ও পুনর্মিলন প্রক্রিয়া’ সমর্থন করেছিল-কিন্তু সেই ‘আফগান নেতৃত্বাধীন/মালিকানাধীন/নিয়ন্ত্রিত প্রক্রিয়া’-তে তালেবানকে স্টেকহোল্ডার হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি-যদিও তালেবানরা আরও নিয়ন্ত্রণ করছিল তখন আফগানিস্তানের অর্ধেকেরও বেশি। একটি আদিবাসী প্রক্রিয়ায় তালেবানদের অন্তর্ভুক্ত করা উচিত ছিল কারণ তারা ছিল যুদ্ধ/শান্তি উভয় সময়েই দেশের অংশীদার। ২০২১ সালের ১ আগস্ট আগস্ট ভারত তড়িঘড়ি করে কাবুল থেকে তার কূটনৈতিক কর্মীদের সরিয়ে নেয়। স্পষ্টতই, সমর্থনটি আফগানিস্তানের জন্য দূরদর্শী, টেকসই এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক ছিল না কারণ তালেবান দখল করার মুহূর্তে ভারত পালিয়ে যায়। এটি আফগানিস্তানের সাথে তার অংশীদারিত্ব এবং ভবিষ্যতে এর বিশ্বাসযোগ্যতা উভয়েই একটি প্রশ্নচিহ্ন রেখে যায়।

৩. শরণার্থী সংকট:

হাজার হাজার আফগানদের সরিয়ে নেওয়া এবং তাদের বিভিন্ন দেশে বসতি স্থাপন করা কোনোভাবেই আফগানিস্তানে সংঘাত সমাধান বা টেকসই শান্তি বিনির্মাণের কাছাকাছি নয়। আজ, ওয়াশিংটন ডিসি, লন্ডন, টরন্টো এবং ব্রাসেলসের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দু:খী আফগান পরিবারের আগমনের ছবি রয়েছে। ২০ বছরের একটি  ব্যর্থ যুদ্ধের পর ভাল সংখ্যক আদিবাসী জনগোষ্ঠীকে সরিয়ে নেওয়া, স্থানচ্যুত করা বা স্থানচ্যুত করা কোন বিজয় নয়।

যে মুহুর্তে একজন ব্যক্তি তার দেশ ত্যাগ করে এবং একটি অনিশ্চিত ভবিষ্যত নিয়ে একটি উন্নত দেশে এসে পৌঁছায়, সে/সে একজন আফগান নাগরিক হিসেবে তাদের পরিচয়কে শরণার্থীর মর্যাদা দিয়ে বিক্রি করে দেয় – একটি সম্পূর্ণ দুর্বল ঘটনা। প্রায় ৭ লাখ ৭৫হাজার সৈন্য এবং ২০ বছর সময় এবং প্রতিদিন মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার আফগানিস্তানে ব্যয় করেও  শান্তি আনতে পারেনি। আফগানদেরকে অন্য দেশে নিয়ে আসা কোনো কার্যকর সমাধান নয় এবং বরং যারা ভালো সম্ভাবনার জন্য আফগানিস্তান ত্যাগ করতে পারেনি তাদের মধ্যে শত্রুতা তৈরি করবে।

৪. চূড়ান্ত সুবিধাভোগী:

২০ বছরের যুদ্ধ আসলে তালেবানদের একটি সুযোগ দিয়েছিল যে কিভাবে ন্যাটোর মতো অত্যাধুনিক, প্রশিক্ষিত আন্তর্জাতিক শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করতে হয়। যদিও তারা এখনও সেনাবাহিনী হিসেবে বৈধতা অর্জন থেকে অনেক দূরে, তারা একটি কাঙ্ক্ষিত সরকার গঠনের পথে। এএনডিএসএফের অস্ত্র (মার্কিন সৌজন্যে) তালেবানদের দখলে থাকে। আফগানিস্তানে কি ধরনের সরকার থাকবে তা অনুমান করা কঠিন নয়; তালেবানদের আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক রাষ্ট্র ব্যবস্থায় একজন খেলোয়াড় বলে মনে হয়।

৫. সুযোগ হিসেবে প্রতিকূলতা:

ইরান, কাতার, চীন এবং রাশিয়ার আফগানিস্তানকে আগামী বছরগুলিতে স্থিতিশীলতা ও শান্তি অর্জনে সহায়তা করার ক্ষেত্রে একটি বুদ্ধিমান দৃষ্টিভঙ্গি ছিল। এই ২০ বছরের যুদ্ধে পাকিস্তান সমানভাবে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ। এটি ইতিমধ্যে বিশ্বকে তালেবানদের বাস্তবতা মেনে নেওয়ার এবং আঞ্চলিক শান্তি ও নিরাপত্তার বৃহত্তর সুবিধার জন্য কাজ করার আহ্বান জানাচ্ছে। পাশ্চাত্য, দুর্ভাগ্যক্রমে, ২০ বছর ধরে তালেবানদের অস্বীকার করে আসছিল। যদি এটি আফগানিস্তানে সব জাতি গোষ্ঠি, গোত্র, শাসকদের অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রাদেশিক সরকার এবং টেকসই শান্তি বিনির্মাণের জন্য কাজ করত এবং আফগান সরকার এবং তালেবান উভয়ের সাথে আস্থা গড়ে তোলার প্রচেষ্টা করত, তাহলে পরিস্থিতি আজকের চেয়ে একটু ভালো হতো।

মুল লেখক :  Dr Maria Saifuddin Effendi, সহকারী অধ্যাপক, শান্তি ও সংঘাত গবেষণা, জাতীয় ডিফেন্স ইউনিভার্সিটি, ইসলামাবাদ। দি নিউজ পিকে

অনুবাদ ও সম্পাদনায় : সৈয়দ গোলাম নবী