Bnanews24.com
Home » ভাষা সৈনিক (২৪) আব্দুল মুইজ্জ বাদশা
টপ নিউজ ভাষা সৈনিক পরিচিতি সব খবর

ভাষা সৈনিক (২৪) আব্দুল মুইজ্জ বাদশা

ভাষা সৈনিক বাদশা আব্দুল মুইজ্জ

আব্দুল মুইজ্জ বাদশা ১৯২৬ সালের ৫ নভেম্বর ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম- খান বাহাদুর মহম্মদ। মাতার নাম- আমিনা বেগম। তিনি হুগলীর চূঁচূড়া থেকে ম্যাট্রিক ও আই.এ. পাশ করেন।

মো. আব্দুল মুইজ্জ ১৯৪৭ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বি.এ. পাস করেন। দেশ বিভাগের পর ১৯৪৯ সালে রাজশাহীতে এসে কর্মজীবন শুরুর সাথে সাথে রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। তৎকালীন পূর্ব বাংলা তখন রাষ্ট্র ভাষা বাংলার দাবিতে ছিল উত্তাল। তরুণ মুইজ্জও ঝাঁপিয়ে পড়লেন এই আন্দোলনে। তাঁর বাসভবন কমর মঞ্জিল সংলগ্ন নিজস্ব ছাপাখানা কুসুম কামিনী প্রেসে দিবা-রাত্রি বাংলা ভাষার দাবিতে প্রচারপত্র ও প্রতিবাদপত্র ছাপিয়ে তা রাতের অন্ধকারে সহ-যোদ্ধাদের হাতে তুলে দিতেন। সহধর্মিণী সাকিনা বেগমের উপর দায়িত্ব ছিল পুলিশ যদি কখনও বাড়ি ঘেরাও করে এবং তাঁকে বন্দি করে তাহলে তিনি যেন কালক্ষেপণ না করে ছাপানো কাগজগুলো বাড়ি সংলগ্ন বাগানে নিয়ে পুড়িয়ে ফেলেন।

জনাব মুইজ্জ ১৯৫২ সালে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব প্রাপ্ত হন। ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। ১৯৫৭ সালে ঐতিহাসিক কাগমারী হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের পদে যোগদান করেন।

তিনি ১৯৬০ সালের মধ্যে ডিপ.ইন.এড ও বাংলা সাহিত্যে এম. এ ডিগ্রী লাভ করেন। ১৯৬৭ সালে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডে যোগদান করেন এবং ভারপ্রাপ্ত সচিব থাকাকালে ১৯৬৭ সালের ৭ সেপ্টেম্বর মাত্র ৪২ বছর বয়সে ইন্তেকাল করেন।

তিনি নিয়মিত রাজশাহী বেতারে নাটক ও কথিকা লিখতেন, সেইসঙ্গে উপস্থাপনা ও অভিনয় করতেন। ‘মৃত্যু নেই’ তাঁর লেখা রহস্য উপন্যাস, যা তাঁর মৃত্যুর চার দশক পর প্রকাশিত হয়। তিনি স্কুল ও কলেজের পাঠ্য উপযোগী করে ‘জাতীয় ভাষা রচনা বিধান’ শীর্ষক গ্রন্থ রচনা করেন।

সূত্র: যারা অমর ভাষা সংগ্রামে, লেখক: এমআর মাহবুব

সম্পাদনায়: মনির ফয়সাল

পড়ুন আগের পর্ব: ভাষা সৈনিক (২৩) আব্দুল করিম পাঠান