Bnanews24.com
Home » দেশের সবচেয়ে ঘৃণিত প্রতিষ্ঠান নির্বাচন কমিশন:মির্জা ফখরুল
টপ নিউজ বিএনপি রাজনীতি সব খবর

দেশের সবচেয়ে ঘৃণিত প্রতিষ্ঠান নির্বাচন কমিশন:মির্জা ফখরুল

বাংলাদেশের সবচেয়ে ঘৃণিত প্রতিষ্ঠান নির্বাচন কমিশন:মির্জা ফখরুল

বিএনএ,ঢাকা:সরকারের তল্পিবাহক বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোনোভাবেই অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।এজন্য সিইসিসহ পুরো কমিশনের পদত্যাগ দাবি করেছেন তিনি।

সোমবার (১১ জানুয়ারি) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি আয়োজিত এক মানববন্ধনে যোগ দিয়ে মির্জা ফখরুল আরও বলেন,বিএনপির পক্ষ থেকে বারবার নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ চাওয়া হয়েছে। শুধু বিএনপিই নয়,এখন দেশের বিশিষ্টজনসহ আন্তর্জাতিকভাবেও বলা হচ্ছে এই নির্বাচন কমিশন বিতর্কিত। তারা কখনই সুষ্ঠুভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারবে না।এই কমিশন সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। তাদের সেই যোগ্যতা নেই যে তারা একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করবে। জাতীয় নির্বাচন গেছে এখন স্থানীয় সরকার নির্বাচন তারা একইভাবে লুট করে নিয়ে যাচ্ছে। ভোট চুরি করে নিয়ে যাওয়ার পর সিইসি বলেন, ভোট সুষ্ঠু হয়েছে। এতই সুষ্ঠু হয় যে কোন কেন্দ্রে শতকরা একশ ভাগের বেশিও ভোট পড়ে যায়।নির্বাচন কমিশনকে বাংলাদেশের সবচেয়ে ঘৃণিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি।

বিএনপির মহাসচিব বলেন,সরকার পরিকল্পিতভাবে মানুষের বাকস্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছে। মানবাধিকার হরণের পাশাপাশি দেশে ভিন্নভাবে একদলীয় শাসন কায়েমের চেষ্টা চলছে। এজন্যই ক্ষমতাসীনরা রাষ্ট্রের সব গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে দিয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

সরকার পতনের আন্দোলনে দেশের সব রাজনৈতিক দলগুলোকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, এই সরকার দেশে একটি লুটপাটের রাজত্ব তৈরি করেছে। দেশের মানুষের সব আশা-আকাঙ্ক্ষা ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে।২০০৭ সালের এই জানুয়ারি মাসের ১১ তারিখে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক চক্রান্তের মধ্যদিয়ে একটা অবৈধ ও বেআইনি তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠন করা হয়েছিল। যারা অত্যন্ত সুপরিকল্পিত ও সুচিন্তিতভাবে বাংলাদেশে বিরাজনীতিকরণের প্রক্রিয়াকে সম্পন্ন করেছে।সেসময় বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াসহ অসংখ্য রাজনৈতিক নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করে মিথ্যা মামলা দেয়া হয়। সবচেয়ে কষ্টের বিষয় হচ্ছে, আজ এই আওয়ামী লীগ সেই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সঙ্গে যোগসাজশ করে একইভাবে দেশে বিরাজনীতিকরণের প্রক্রিয়া চালাচ্ছে। আজ বিএনপিসহ ২৫ লাখেরও বেশি মানুষের বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে।১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মানুষ রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে দেশ স্বাধীন করেছিল। সবার একটা আকাঙ্ক্ষা ছিল, দেশে একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা হবে। আকাঙ্ক্ষা ছিল, এদেশের মানুষ মুক্ত সমাজে বসবাস করবে। কিন্তু এই সরকার সব শেষ করে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নির্বাচনে হেরে গিয়েও তার একনায়কতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করার জন্য জোর করে ক্ষমতা ধরে রাখার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু আমেরিকার প্রতিষ্ঠানগুলো, তাদের বিচার বিভাগ, পার্লামেন্ট ট্রাম্পের অপচেষ্টাকে কঠোরভাবে দমন করার কারণেই আজ দেশটিতে গণতন্ত্র ধ্বংস করা যায়নি। সেখানে গণতন্ত্রের জয় হয়েছে বলে মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল।

বিএনএনিউজ/আরকেসি