স্ত্রীর মানহানির মামলায় জিতলেন জনি ,পাচ্ছেন ক্ষতিপূরণ

বিনোদন রিপোর্ট : সাবেক স্ত্রী অ্যাম্বার হার্ডের(Amber Heard ) বিরুদ্ধে করা মানহানির মামলায় নিজের পক্ষেই বেশির ভাগ রায় পেয়েছেন মার্কিন সুপারস্টার জনি ডেপ(Johnny Depp)। চার বছর ধরে চলা নাটকীয়তার অবসান হলো অবশেষে,গত ৩১মে যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ার একটি আদালত এ রায় এ মাধ্যমে। সূত্র : এনবিসিনিউজ।

২০১৭ সালে এই দুই তারকার আদালতের মাধ্যমে বিচ্ছেদ হয় । বিচ্ছেদের পরের বছরই জনের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ করেন অভিনেত্রী হার্ড। এরপরই সাবেক স্ত্রীর বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেন জনি। দুই দিনের শুনানির পর দেয়া আদেশে জনির বিরুদ্ধে আনা হার্ডের পারিবারিক নির্যাতনের অভিযোগকে সাজানো বলে উল্লেখ করেছেন আদালত। একই সঙ্গে জনিকে ১ কোটি ৫০ লাখ ডলার ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। জনির বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ আনার পেছনে হার্ডের অসৎ উদ্দেশ্য ছিল বলে জানিয়েছেন আদালত।

একই সাথে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে জনির আইনজীবীকেও। সাত সদস্যের জুরি রায় দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে আদালতের বাইরে ‘জনি, জনি, জনি’ বলে চিৎকার ও স্লোগান ওঠে জনির বক্তদের।এ সময় পূর্বনির্ধারিত কাজের সিডিউলের কারণে আদালতে ছিলেন না জনি।

রায় প্রসঙ্গে দেয়া এক বিবৃতিতে জনি বলেন, ‘আদালত বিচারকরা আমাকে আমার জীবন ফিরিয়ে দিয়েছে। আমি সত্যিই নির্দোষ।’ সঙ্গে ল্যাটিন ভাষায় জনি যোগ করেন, ‘সত্য কখনো বিনষ্ট হয় না।’ রায় ঘোষণার পর আদালতে চুপচাপ বসে ছিলেন হার্ড। এ সময় তাঁকে বিমর্ষ দেখাচ্ছিল।

এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘আমি দুঃখিত যে আমি মামলাটিতে হেরেছি। অন্য নারীদের জন্য এ রায়ের অর্থ কী, তা নিয়ে আমি আরও বেশি হতাশ। এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন বলে জানান হার্ডের আইনজীবী। ছয় সপ্তাহের বেশি সময় ধরে ফেয়ারফ্যাক্স ভার্জিনিয়ার আদালত জনি ও হার্ডের মামলার বিশদ বর্ণনা শুনেছে, যা টিভিতে সরাসরি সম্প্রচার করা হয় ।

২০১৮ সালে ওয়াশিংটন পোস্টে লেখা এক নিবন্ধে সাবেক স্বামী জনি ডেপের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ আনেন হার্ড। এরপরই তাঁর বিরুদ্ধে ৫০ মিলিয়ন ডলারের মানহানি মামলা করেন জনি। পরে হার্ড ১০০ মিলিয়ন ক্ষতিপূরণ চেয়ে পাল্টা মামলা করেন।২০১১ সালে একটি ছবির শুটিংয়ের সময় জনি ও হার্ডের প্রেম শুরু হয়। ২০১৫ সালে তাঁরা বিয়ে করেন। দুই বছর পর তাঁদের বিচ্ছেদ হয়।

রিপন রহমান খান,জিএন