ফিজিবিলিটি স্টাডি ছাড়া বন্দরের প্রকল্প গ্রহণ উচিত নয়

ফিজিবিলিটি স্টাডি ছাড়া বন্দরের প্রকল্প গ্রহণ উচিত নয়

অর্থ-বাণিজ্য চট্টগ্রাম পোর্ট ও শিপিং সব খবর

বিএনএ,চট্টগ্রাম: ফিজিবিলিটি স্টাডি ছাড়া বন্দরের জন্য কোন প্রকল্প গ্রহণ করা ও অপচয় মূলক কোন খাতে বন্দরের প্রকল্প গ্রহণ করা উচিত হবে না।

শনিবার (২৬ ডিসেম্বর) নগরীর আন্দরকিল্লায় পুরাতন নগরভবনের কে.বি আব্দুস সাত্তার মিলনায়তনে চট্টগ্রাম বন্দর উন্নয়ন ও গবেষণা পরিষদের সভায় সংগঠনের সভাপতি কমোডোর(অব:) জোবায়ের আহমদ এ কথা বলেন। এসময় তিনি চট্টগ্রাম বন্দরের উন্নয়নের জন্য বিষয়ভিত্তিক গবেষণালব্দ প্রতিবেদন দেয়ার জন্য বন্দর উন্নয়ন ও গবেষয়ণা পরিষদের টেকনিক্যাল কমিটির প্রতি অনুরোধ জানান।

জোবায়ের আহমদ বলেন, অদূর ভবিষ্যতে চট্টগ্রাম বন্দর ভৌগলিক অবস্থার কারণে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার নৌ ব্যবসা বাণিজ্যের মালামাল হ্যান্ডলিং এর অন্যতম প্রধান হাব হিসাবে পরিগণিত হবে। তার জন্য এখন থেকেই চট্টগ্রাম বন্দরকে জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক কার্গো-কন্টেইনার হ্যান্ডলিং সামাল দিতে ও দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধির লক্ষ্যে সরকারকে জরুরি ভিত্তিতে উন্নয়নমূলক পদক্ষেপ নিতে হবে। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ অধ্যাদেশ ১৯৭৬ অনুসারে চট্টগ্রাম বন্দর নিজস্ব অর্থ দিয়ে বন্দরের ব্যয় মিটিয়ে বন্দরের উন্নয়নমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব বিধায় বন্দরের রক্ষিত অর্থ দিয়ে বন্দরের উন্নয়নমূলক কাজে ব্যয় করা যথাযথ হবে। এতে বাংলাদেশের সার্বিক জিডিপি বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

সভায় বিস্তারিত আলোচনার পর বন্দরের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার বিষয়ে চট্টগ্রাম বন্দরের কর্তৃপক্ষের সাবেক সদস্য (প্ল্যানিং এন্ড এডমিন) বীর মুক্তিযোদ্ধা হোসেন বাবুলকে একটি প্রতিবেদন তৈরি করে পরিষদের সভায় পেশ করার অনুরোধ জানানো হয়। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সাবেক সদস্য (অর্থ) হারুন মিঞাকে শিপিং সংক্রান্ত বিষয়ে, সাবেক সদস্য (অর্থ) মোশারফ হোসেনকে বন্দরের অর্থ ও হিসাব সংক্রান্ত বিষয়ে, চট্টগ্রাম বন্দরের সাবেক প্রকল্প পরিচালক (নিউমুরিং কন্টেইনার টার্মিনাল) ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুরকে বন্দরের জন্য প্রয়োজনীয় উন্নয়নমূলক প্রকল্পসমূহ গ্রহণ সম্পর্কে, কর্ণফুলী নদী খনন সংক্রান্ত ব্যাপারে সাবেক সিনিয়র হাইড্রোগ্রাফার আতাউর রহমান খানকে, বন্দরের অপারেশন সংক্রান্ত কার্যক্রম উন্নয়নের জন্য সাবেক ভারপ্রাপ্ত পরিচালক(পরিবহন) কে এম মোজাফফর হোসাইনকে, বন্দরের অপচয় রোধ সম্পর্কে সাবেক প্রোগ্রামার ইঞ্জি. সলিমুল্লাহ খানকে, কর্ণফুলী নদী সম্পর্কে কর্ণফুলী নদী গবেষক অধ্যাপক ইদ্রিচ আলীকে, চট্টগ্রাম বন্দরে কর্মরত সরকারি-বেসরকারি সকল শ্রমিক কর্মচারীদের জীবনমান উন্নয়নের জন্য সিবিএ এর সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এড. মো.মাহফুজুর রহমান খানকে গবেষণালব্দ প্রতিবেদন প্রদান করার বিষয়ে সভার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সভায় বক্তব্য রাখেন ইঞ্জি. এম এ সবুর, ইঞ্জি. সলিমুল্লাহ খান, বীর মুক্তিযোদ্ধা এড. মো. মাহফুজুর রহমান খান, জসিম উদ্দিন বাবুল, এড. রনাঙ্গ বিকাশ চৌধুরী, মো. জামাল উদ্দিন, আবু জাফর আজাদ, কালাম চৌধুরী, এড. সাজ্জাদুর রহমান বাচ্চু, মো. শাহাবুদ্দিন, তপন চক্রবর্ত্তী , মো. শরিয়তউল্লাহ, আব্দুর রহমান সিকদার, এড. প্রণব কান্তি পাল, এড. রেভা বড়ুয়া, মুছা আলনুরী প্রমুখ।

বিএনএনিউজ/মনির

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *