37 C
আবহাওয়া
৪:১৮ অপরাহ্ণ - এপ্রিল ২২, ২০২৪
Bnanews24.com
Home » পবিত্র শবে বরাতের রাতে মসজিদে মুসল্লিদের ভিড়

পবিত্র শবে বরাতের রাতে মসজিদে মুসল্লিদের ভিড়

পবিত্র শবে বরাতের রাতে মসজিদে মুসল্লিদের ভিড়

বিএনএ রিপোর্ট:  রবিবার(২৫ ফেব্রুয়ারি২০২৪) রাতে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পালিত হচ্ছে পবিত্র শবে বরাত বা লাইলাতুন নিসফে মিন শাবান বা মধ্য শাবানের রজনী। বিশ্ব মুসলিমবাসীর বিশ্বাস, এ রাতে অসংখ্য বান্দা মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে ক্ষমা ও আশীর্বাদ লাভ করে থাকে। এ কারণে এ রজনীকে আরবিতে ‘লাইলাতুল বারাআত’ বা ‘নিষ্কৃতি/মুক্তির রজনী’ বলা হয়।

রাজধানী, ঢাকা, বন্দর নগরী চট্টগ্রামসহ সারাদেশের প্রত্যন্ত এলাকার মসজিদ,এবাদতখানাসমূহ রাতে মুসল্লিদের উপস্থিতিতে কানায় কানায়পূর্ণ হয়ে যায়। নিজের ও স্বজনদের সব ধরণের সমস্যা,সংকট,দেশের উন্নতি ও কল্যাণ শান্তি কামনায় মুসল্লিরা  অশ্রুসজল বিশেষ মোনাজাত করেন।এ সময় অনেকে  কবরস্থানেও অনেককে জেয়ারত করতে দেখা যায়।

ছবি-চট্টগ্রাম জমিয়াতুল ফালাহ মসজিদ,বিএনএ সাইদুল
ছবি-চট্টগ্রাম জমিয়াতুল ফালাহ মসজিদ,বিএনএ সাইদুল

নফল  নামাজ পড়াসহ বিশেষ দোয়া দরুদ পাঠ, মহান আল্লাহতায়ালার নিকট ক্ষমা,রিজিক,হায়াত, দু:খ কষ্ট লাঘব, বিপদ মুক্তির জন্য বিশেষ প্রার্থনা করাই এ রাতের ইবাদত। অনেকে এ রাতে সেহেরি খান রোজা রাখার উদ্দেশ্য।

নবী(সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এরশাদ করেছেন, যে শাবানে ১ দিন রোজা রেখেছে, যে ব্যক্তি শাবানের ১৫ তারিখে রোজা রাখবে, তাকে জাহান্নামের আগুন স্পর্শ করবে না।

রসুলুল্লাহ ( সা.) বলেন, এটা হলো অর্ধ শাবানের রাত (শবে বরাত)। আল্লাহ তায়ালা এ রাতে তার বান্দার প্রতি মনোযোগ দেন। ক্ষমাপ্রার্থনাকারীদের ক্ষমা করেন। অনুগ্রহপ্রার্থীদের অনুগ্রহ করেন আর বিদ্বেষ পোষণকারীদের ছেড়ে দেন তাদের অবস্থাতেই। (তাবারানি ১৯৪)

শবে বরাতের নামাজের নিয়ত:  নাওয়াইতুআন্ উছল্লিয়া লিল্লা-হি তাআ-লা- রাকআতাই ছালা-তি লাইলাতিল বারা-তিন্ -নাফলি, মুতাওয়াজ্জিহান ইলা-জিহাতিল্ কাবাতিশ্ শারীফাতি আল্লাহু আকবার। বাংলায় নিয়ত করলে এই ভাবে করা যাবে : ‘শবে বরাতের দুই রাকাত নফল নামাজ/ সালাত কিবলামুখী হয়ে পড়ছি, আল্লাহু আকবার।’

পবিত্র শবেবরাতের দোয়া

রমজানের দুই মাস আগ থেকেই রাসুল (স.) একটি দোয়া বেশি বেশি পড়ার নির্দেশ দিয়েছেন। সেই দোয়াটি আমরা পুরো রজব-শাবানে পড়তে পারি। দোয়াটি হলো— اَللَّهُمَّ بَارِكْ لَنَا فِىْ رَجَبَ وَ شَعْبَانَ وَ بَلِّغْنَا رَمَضَانَ (অর্থ) ‘হে আল্লাহ, আমাদের রজব ও শাবান মাসে বরকত দিন এবং আমাদের রমজান পর্যন্ত পৌঁছে দিন।’ আনাস (রা.) বর্ণনা করেছেন, রজব মাস শুরু হলে রাসুল (স.) এই দোয়া পাঠ করতেন। (বায়হাকি: ৩৫৩৪; নাসায়ি: ৬৫৯; মুসনাদে আহমদ: ২৩৪৬)।

নিচের দোয়াটাও এ রাতেও পড়া যায়।

للَّهُمَّ إِنَّكَ عَفُوٌّ تُحِبُّ الْعَفْوَ فَاعْفُ عَنِّى উচ্চারণ: আল্লাহম্মা ইন্নাকা আফুয়্যুন, তুহিব্বুল আফওয়া, ফাফু আন্নি। অর্থাৎ হে আল্লাহ, তুমি ক্ষমাশীল, ক্ষমা পছন্দ করো, অতএব আমাকে ক্ষমা করে দাও। এ ছাড়াও এ রাতে কোরআন তিলাওয়াত, জিকির, তাসবিহ পাঠ পর দিন রোজা রাখার অনেক অনেক ফজিলত রয়েছে।

এসজিএন

Loading


শিরোনাম বিএনএ