Bnanews24.com
চট্টগ্রাম টপ নিউজ সব খবর

হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত : হেফাজত

সুনামগঞ্জে হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত : হেফাজত

বিএনএ, চট্টগ্রাম : সুনামগঞ্জের শাল্লায় রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত নিরীহ হিন্দু পরিবারদের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ এবং সরকারের কাছে এহেন নিন্দনীয় হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছে হেফাজতে ইসলাম। শুক্রবার ( ১৯ মার্চ) হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী সংবাদমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান।

বিবৃতিতে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে হামলা ও লুটপাটের ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে আজিজুল হক ইসলামাবাদী বলেন, আমরা জানতে চাই, কারা এই হামলার নেতৃত্ব দিয়েছে এবং কারা হাজার হাজার হামলাকারীকে সংগঠিত করেছে? অথচ এখন পর্যন্ত  কাউকে গ্রেপ্তার করাও হয়নি বলে গণমাধ্যমে আমরা জানতে পেরেছি। হাজার হাজার মানুষ সংঘবদ্ধ হয়ে হামলা করলো, অথচ আশ্চর্যজনকভাবে সেখান থেকে কাউকেই গ্রেপ্তার করা হলো না কেন? সেখানকার আক্রান্ত হিন্দু সম্প্রদায় বলেছেন তারা আগেই মাইকে হামলার খবর শুনে গ্রাম ছেড়ে নিরাপদ স্থানে পালিয়ে গেছেন। এই হামলার খবর তাদেরকে আগে কারা জানালো? আগেভাগে হামলার আশঙ্কা জেনেও স্থানীয় প্রশাসন কেন যথাসময়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়নি? এই অবহেলা বা ব্যর্থতার দায় অবশ্যই সেখানকার প্রশাসনকেই নিতে হবে। এটি একটি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হামলা। আর হিন্দু গ্রাম শাল্লায় জলমহালের দখল নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীদের মধ্যে দাঙ্গা ও হানাহানির ঘটনা নিয়মিত এবং পুরোনো।

আজিজুল হক বলেন, পর্যাপ্ত তদন্ত, অনুসন্ধান ও প্রমাণ ছাড়াই হেফাজতে ইসলামকে জড়িয়ে উদ্দেশ্যমূলক প্রপাগান্ডা চালাচ্ছে কয়েকটি চিহ্নিত ভারতপন্থী মিডিয়া। আমরা তাদের এহেন অপেশাদার ও হলুদ সাংবাদিকতার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। অতীতে হিন্দু সম্প্রদায়ের উপাসনালয়ে হামলা বা ভাঙচুরের ঘটনা ঘটলে হেফাজতে ইসলাম সেটার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে। আমরা সবাইকে স্পষ্ট জানাতে চাই যে, ভিন্ন ধর্মাবলম্বীর উপাসনালয় ও বাড়িঘরে কোনো ধরনের হামলাকে হেফাজত সমর্থন করে না।

তিনি বলেন, ভারতের ক্ষমতাসীন হিন্দুত্ববাদী শাসকদলের প্রধানমন্ত্রী ও গুজরাটের কসাইখ্যাত নরেন্দ্র মোদীর আসন্ন আগমনের প্রাক্কালে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে পরিকল্পিতভাবে কথিত ফেসবুক পোস্টের নাটক সাজিয়ে নিরীহ হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে এমন ন্যক্কারজনক হামলার ঘটনা ঘটানো হয়েছে বলে আমরা মনে করি। ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতায় আসার জন্য উগ্র হিন্দুত্ববাদী বিজেপি সেখানে বাংলাদেশের তথাকথিত হিন্দু নির্যাতনের কাহিনী প্রচার করে রাজনৈতিক সুবিধা নিতে চায় সবসময়।

তিনি আরও বলেন, আমাদের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে বাংলাদেশে গুজরাটে মুসলমানদের ওপর গণহত্যার মূল হোতা এবং কাশ্মিরের স্বাধীনতাকামী মুসলমানদের ওপর বর্বরোচিত জুলুম নিপীড়নকারী নরেন্দ্র মোদীর আগমন প্রতিহত করা এদেশের মুসলমানদের ঈমানি দায়িত্ব। কোনো ধরনের সাবোট্যাজ ঘটিয়ে সচেতন জনগণের দৃষ্টি ভিন্ন দিকে ঘুরিয়ে দেয়া যাবে না।

বিএনএনিউজ/আমিন