Bnanews24.com
চট্টগ্রাম পোর্ট ও শিপিং সব খবর

এখনও উদ্ধার হয়নি ডুবে যাওয়া জাহাজটি

এখনও উদ্ধার হয়নি ডুবে যাওয়া জাহাজটি

বিএনএ,চট্টগ্রাম: নোয়াখালীর হাতিয়ার ভাসানচরের কাছে বঙ্গোপসাগরে ডুবে থাকা একটি জাহাজের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ডুবে যাওয়া এমভি হ্যাং গ্যাং-১ নামের জাহাজটি এখনও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। গত মঙ্গলবার সকালে চট্টগ্রাম থেকে জাহাজটিতে পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজেরপ্রায় এক হাজার ২০০ মেট্রিক টন লোহার মালামাল নিয়ে ঢাকার মাওয়া যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ওই জাহাজে প্রায় ১৮ কোটি টাকার মালামাল রয়েছে। জাহাজটি পরিচালনা করছে মেসার্স জেড শিপিং লাইন।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের উপ-পরিচালক মো. সেলিমের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, জাহাজটি নাবিকের অসচেতনতায় দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এরইমধ্যে জাহাজটি উদ্ধারে মালিককে ১৫ দিনের সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে। তবে জাহাজটি সম্পূর্ণ ডুবে না যাওয়ায় এটি উদ্ধারে কম বেগ পেতে হবে।

এ বিষয়ে পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী ও প্রকল্প ব্যবস্থাপক (মূল সেতু) দেওয়ান মো. আব্দুল কাদের বলেন, পদ্মা সেতুর এক হাজার ২০০ মেট্রিক টন লোহার সামগ্রী নিয়ে জাহাজটি ডুবে গেছে। তবে চালক জাহাজটিকে চরের কাছাকাছি নিয়ে যেতে পেরেছেন। এজন্য জাহাজের মালামাল উদ্ধার করা যাবে। এরই মধ্যে অন্য জাহাজ ও ক্রেন পাঠানো হয়েছে। আশা করি, শতভাগ মালামাল উদ্ধার করা সম্ভব হবে।

তিনি বলেন, এসব মালামালের দায়িত্ব ঠিকাদারের ওপর বর্তায়। দুর্ঘটনাকবলিত হলে সেতু প্রকল্পের কাজে প্রভাব পড়তে পারে। এসব কারণে অনেক সময় প্রকল্পের কাজের সময় বেড়ে যায়। এজন্য মালামালসহ ডুবে যাওয়া জাহাজের নিরাপত্তায় নৌ-পুলিশ ও কোস্টগার্ড মোতায়েন করা হয়েছে।

নির্বাহী প্রকৌশলী আরও বলেন, ডুবে যাওয়া মালামালের মধ্যে আছে রেলওয়ের পাশ দিয়ে যাওয়া ওয়াকওয়ে তৈরির টানেল ও অ্যাঙ্গেল। এসব মালামালের ফিনিশিং কাজও হয়ে গিয়েছিল। প্রায় দেড় লাখ টাকা টন হিসাবে এক হাজার ২০০ টন সামগ্রীর দাম পড়ে প্রায় ১৮ কোটি টাকা।

এর আগে গত ৪ জুলাই ভাসানচর নতুন চ্যানেলের কাছে ডুবে যায় ‘এমভি একরাম জুনায়েদ-২’ নামের একটি লাইটার জাহাজ। এরপর গত ১০ জুলাই ডুবে থাকা জাহাজের সাথে ধাক্কা খেয়ে ফুলতলা-১ নামে আরো একটি লাইটার জাহাজ ডুবে যায়। সর্বশেষ মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) সকালে চট্টগ্রাম থেকে মাওয়া যাওয়ার সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ডুবন্ত একটি লাইটার জাহাজের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ডুবে গেছে এমভি হ্যাং গ্যাং-১ নামে পণ্যবাহী জাহাজ।

প্রসঙ্গত, গত ৩০ জুন পর্যন্ত পদ্মা সেতুর অগ্রগতি ৯৪ ভাগ এবং প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি ৮৭ ভাগ। সেতুর অবশিষ্ট কাজের মধ্যে রয়েছে রোডওয়ে স্ল্যাব, প্যারাপেট ওয়াল, স্ট্রিট লাইটিং ইত্যাদি। প্রায় ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতুটি আগামী বছরের জুনে চালু হওয়ার কথা রয়েছে।

বিএনএনিউজ/মনির

আরো পড়ুন: ডুবো জাহাজে ধাক্কা লেগে ডুবল এমভি হ্যাং গ্যাং-১