Bnanews24.com
ভাষা সৈনিক পরিচিতি সব খবর

ভাষা সৈনিক(১০) আবদুল গাফফার চৌধুরী পর্ব : ০২

ভাষা সৈনিক আবদুল গাফফার চৌধুরী

একটি কবিতা লেখার জন্য আমার মনে যে লাইনটি এসেছিল তা হলো ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি আমি কি ভুলতে পারি’। হাসপাতাল থেকে রিলিজ পাওয়ার পর মেডিকেল কলেজের আউট-ডোর থেকে যখন শহীদুল্লাহ সাহেব আমকে তাঁর বেগম বাজারের বাড়িতে নিয়ে যান। সেখান থেকে আমি শফিক রেহমানের বাসায় গিয়ে উঠি। এ বাসায় একদিন আহম্মদ হোসেন আমাকে বলেন, ‘তুমি নাকি একটা কবিতা লেখা শুরু করেছিল দাউদের বাসায় বসে। সেটা শেষ করেছো কি? না করে থাকলে শেষ করে ফেলো। আমরা গেণ্ডারিয়ায় একটা গোপন সভা করবো। সে সভায় ভাষা আন্দোলনের পক্ষে একটা ইস্তেহার তৈরি করা হবে। তারপর এটাকে প্রকাশ ও প্রচার করা হবে। সে ইস্তেহারে তোমার কবিতাটি ছাপানো হবে বলে আমরা ঠিক করেছি। আব্দুল্লাহ আল মুতী বলেছেন, ‘গাফফার যেন কবিতাটি সম্পূর্ণ লিখে ফেলে’।

এ কথা শোনার পর আমি কবিতাটি লেখা শেষ করি। লেখাটা শেষ করি কবিতা হিসেবে, গান হিসেবে নয়। আহম্মদ হোসেন যদি জোর না করতেন তা হলে এটি লেখা হতো কি না সন্দেহ আছে। গেণ্ডারিয়ায় সেই গোপন সভাটি হয়েছিল। আবদুল্লাহ আল মুতী সে সভায় ছিলেন। আমার কবিতাটি সেখানে পাঠ করা হয়েছিল।

আমার আইএ পরীক্ষার আগে গুলিস্তানের ব্রিটানিয়া হলে ঢাকা কলেজ নবনির্বাচিত ছাত্র সংসদের অভিষেক অনুষ্ঠান হয়। ইকবাল আনসারী খান ভিপি, মশিউর রহমান হিরু জেনারেল সেক্রেটারি ও ইনাম আহমদ চৌধুরী সদস্য ছিলেন এই সংসদের। এই অভিষেক অনুষ্ঠানে আবদুল লতিফ আমার সেই কবিতা ‘আমার ভাইয়ের রক্ত রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’ গেয়ে শোনায়।

সূত্র: যারা অমর ভাষা সংগ্রামে, লেখক: এমআর মাহবুব

সম্পাদনায়: মনির ফয়সাল

পড়ুন আগের পর্ব: ভাষা সৈনিক(১০) আবদুল গাফফার চৌধুরী