Bnanews24.com
Home » বাদাম তেল কেন খাবেন?
এক নজরে টপ নিউজ লাইফস্টাইল

বাদাম তেল কেন খাবেন?

বাদাম

লাইফস্টাইল ডেস্ক: বাজারে বেড়েছে ভোজ্যতেলের দাম। সয়াবিন তেলের যেমন বাড়তি দাম তেমনি অনেকেই স্বাস্থ্যের প্রতি সচেতন থাকায় রান্নায় ব্যবহার করতে চান না সয়াবিন তেল। সয়াবিন তেলের বিকল্প হতে পারে বাদামের তেল। বাদাম তেলের রয়েছে বেশ গুণাগুণ। এ কারণে খাবারের সঙ্গে বাদাম যুক্ত করার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। এতে হৃদ্‌রোগের ঝুঁকি অনেক কমে যাবে।

বাদাম হলো প্রাকৃতিক উদ্ভিদজাত খাদ্য উপাদান। এটি শরীরের জন্য খুবই উপকারী। এতে শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদানগুলো যথেষ্ট পরিমাণে রয়েছে। যেমন বাদামে যে প্রোটিন রয়েছে তা অন্যান্য খাদ্য উপাদান থেকে তুলনামূলকভাবে অনেক বেশি এবং উন্নত মানের। ১০০ গ্রাম মিক্সড বাদাম থেকে প্রায় ২০ গ্রাম প্রোটিন আমরা পেতে পারি। বাদামের তেলে যেহেতু বাদাম ব্যবহার করা হয় তাই বাদাম তেলে এসব পুষ্টিগুণ পাওয়া যাবে।

বাদাম তেলে যে প্রোটিন রয়েছে তা আমাদের শরীরের মাংস পেশীর গঠন ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজন। বাদাম তেলে যে ফ্যাট রয়েছে তা উপকারী ফ্যাট। সাধারণত খাদ্য থেকে আমরা যে ফ্যাট পাই তা দুই ধরনের। স্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট। লাল মাংস বা অন্যান্য তেলে স্যাচুরেটেড ফ্যাট বেশি থাকে কিন্তু বাদামে আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট যেমন মুফা (মনো আনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড) এবং পুফা (পলি মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড) বেশি থাকে। যা আমাদের রক্তের ক্ষতিকর কোলেস্টেরল ট্রাইগ্লিসারাইড নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে এবং শরীরের জন্য উপকারী এইচডিএল অর্থাৎ ভালো কোলেস্টেরল বাড়াতে সাহায্য করে। যা করোনারি হার্ট ডিজিজ, ব্লাড প্রেসার কন্ট্রোল সাহায্য করে থাকে।

যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়া স্টেট ইউনিভার্সিটির গবেষকেরা বাদাম নিয়ে সম্প্রতি একটি গবেষণা করেছেন। তারা বলছেন, খাবারের সঙ্গে বাদাম মিশিয়ে খেলে হৃদ্‌রোগের ঝুঁকি এড়ানো যায়। হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোক থেকে দূরে থাকা যায়। খাবারের পরপর রক্তে লিপিড ও ট্রাইগ্লিসারাইডসের মতো একধরনের চর্বি রক্তে বেড়ে যায়, যা হৃদ্‌রোগের ঝুঁকি বাড়ায়।

গবেষণায় দেখা গেছে, বেশি চর্বিযুক্ত খাবার খেলেও যদি তিন আউন্স পরিমাণ বাদাম খাওয়া যায় রক্তে লিপিড বাড়ার হার কমে। খাবারের সঙ্গে চিনাবাদাম খেলে ৩২ শতাংশ পর্যন্ত ট্রাইগ্লিসারাইডস স্তর কমতে দেখা যায়।

বাদাম তেলে বিভিন্ন রকম ভিটামিন এবং খনিজ লবণ রয়েছে যেমন ভিটামিন ই, ভিটামিন বি ইত্যাদি। এই ভিটামিনগুলো আমাদের ত্বক, চুল এবং আমাদের মস্তিষ্কের কোষগুলোর সুস্থতার জন্য প্রয়োজন।

বাদামের যত গুণ
কাঠবাদামে ভিটামিন ই, ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম থাকায় শরীরের হাড়গুলোকে শক্ত ও মজবুত করে। শরীরের কোলেস্টেরল কমাতেও সাহায্য করে কাঠবাদাম। এতে চর্বির পরিমাণ কম। এতে কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন আছে। হৃদ্‌রোগ যাঁদের আছে, তাঁরা এ থেকে উপকার পাবেন।

কাজুবাদামে ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেশিয়াম ও জিংক আছে। কাজুবাদাম শরীরের কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে।

পেস্তাবাদামে প্রচুর পরিমাণে চর্বি আছে, এটি শক্তি জোগায়। এতে পটাশিয়াম, আয়রন, কপার, জিংক ইত্যাদি আছে। এ ছাড়া বেশি পরিমাণে প্রোটিন রয়েছে। চিনাবাদামে প্রোটিন বেশি থাকায় এটি হৃদ্‌রোগীদের জন্য উপকারী। শরীরে রক্ত চলাচল সাহায্য করে। আখরোটে ওমেগা-৩ ও ৬ বিদ্যমান আছে। কিন্তু কোলেস্টেরল নেই।

বিএনএনিউজ২৪/এমএইচ