৪ দিনেও ভাঙা হয়নি বিপদজনক ভবনটি

বিএনএ, চট্টগ্রাম :চারদিনেও ভাঙা হয়নি চট্টগ্রামে হেলে পড়া সেই ভবনটি। পরিত্যক্ত ঘোষণা করা সে ভবনটি দ্রুত ভেঙে ফেলার ব্যাপারে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ থেকে সিটি করপোরেশনকে চিঠি দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) চসিককে এ চিঠি দেয় চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ।

আরো পড়ুন

‘লাই’ বানিয়ে চলে না সংসার, ভালো নেই টুন্টুরা

স্থানীয়রা জানায়, ভবনটি হেলে পড়ার সময় ফাটল দেখা দেয় আশেপাশের আরও অন্তত ৮ থেকে ১০টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে। ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ায় বন্ধ করে দেয়া হয়েছে বেশকিছু দোকানপাট।

ভবন মালিক খোরশেদ আলম গণমাধ্যমকে বলেন, শুরুতে ফায়ার সার্ভিসের দায়িত্বে ছিল। তারা সিডিএকে দিয়েছে। সিডিএ দিয়েছে সিটি করপোরেশনকে। বর্তমানে তাদের এখতিয়ারেই আছে। এটি এখন আসলেই ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে। সবচেয়ে বড় কথা এপাশ দিয়ে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, স্টেশন এলাকা এবং বস্তি এলাকার হাজার হাজার মানুষ যাতায়াত করে।

উল্লেখ্য, বুধবার(১৮ জানুয়ারি) চট্টগ্রাম মহানগরীর ষোলশহরে অবস্থিত  ভবনটি হেলে পড়ার বিষয়টি নজরে আসার পর ভবনের বাসিন্দাদের সরিয়ে নেওয়া হয়। ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করে তালাবদ্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ভবনটির লাগোয়া চশমা খালে জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্পের কাজ চলছে। প্রকল্পের আওতায় খালের ওই অংশে প্রতিরোধ দেয়াল নির্মাণ করা হচ্ছে। চারতলা ভবনটির নিচতলায় দোকান, দোতলায় দাঁতের চিকিৎসকের চেম্বার, তিনতলায় তথ্যপ্রযুক্তিবিষয়ক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং চারতলায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীদের ৩৫তম ব্যাচের একটি কার্যালয় রয়েছে।
এর আগে ২০২১ সালের ডিসেম্বরে নগরীর সদরঘাট থানাধীন মাঝিরঘাট স্ট্যান্ড রোড সংলগ্ন পার্বতী ফকিরপাড়া এলাকায় খননের সময় গুলজার খাল সংলগ্ন তিনতলা ও দোতলা ভবন দুটি হেলে পড়ে। পরে ভবন দুটি ভেঙে ফেলা হয়েছিল।

বিএনএনিউজ২৪ডটকম