Bnanews24.com
Home » মহাসড়কে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণের পক্ষে পরিবহন নেতারা
টপ নিউজ সব খবর

মহাসড়কে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণের পক্ষে পরিবহন নেতারা

মহাসড়কে মোটরসাইকেল চলাচল সীমিত করার পক্ষে পরিবহন নেতারা

বিএনএ ডেস্ক: সড়ক দুর্ঘটনা রোধে মহাসড়কে মোটরসাইকেল চলাচলের ওপর বিধিনিষেধ আরোপের পরামর্শ দিয়েছেন পরিবহন নেতারা।

বুধবার (২৭ জুলাই) সচিবালয়ে টাস্কফোর্সের বৈঠক শেষে দুই শীর্ষ পরিবহন নেতা শাজাহান খান ও মসিউর রহমান রাঙ্গা মোটরসাইকেলের ওপর বিধিনিষেধ আরোপের বিষয়ে তাদের প্রস্তাবের কথা তুলে ধরেন। তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন টাস্কফোর্স এখনো এ বিষয়ে চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি বলে জানান বৈঠকে অংশগ্রহণকারীরা।

সড়কে দুর্ঘটনা রোধে এবং পরিবহন খাতে শৃঙ্খলা ফেরাতে শাজাহান খানের নেতৃত্বে একটি কমিটির দেয়া ১১১টি সুপারিশ বাস্তবায়নের জন্য ২০১৯ সালের অক্টোবরে এ টাস্কফোর্স গঠন করা হয়। বুধবারের বৈঠকটি ছিল টাস্কফোর্সের পঞ্চম বৈঠক।

ইতোমধ্যে পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ করেছে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ। ঈদের ভিড়ের সময় সড়ক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে এক সপ্তাহের জন্য (৭ জুলাই থেকে ১৩ জুলাই পর্যন্ত) মহাসড়কে মোটরসাইকেল চলাচল সীমিত রাখা হয়।

এছাড়া, একটি সরকারি তদন্ত কমিটি সম্প্রতি জাতীয় মহাসড়কে মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ করার সুপারিশ করেছে। কারণ, চলতি বছরের ঈদ-উল-ফিতরের সময় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছিল বলে তাদের তদন্তে উঠে এসেছে। তবে অনেক মোটরসাইকেল চালক ও ব্যবহারকারীদের অভিযোগ, বাস মালিকদের চাপে এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটিতে এ পর্যন্ত ৩৫ লাখের বেশি মোটরসাইকেল নিবন্ধিত হয়েছে। কিন্তু সারাদেশে এখনও অনেক অনিবন্ধিত মোটরসাইকেল রয়ে গেছে।

বুধবারের বৈঠকের পর বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি শাজাহান খান বলেন, দেশে প্রায় ৪০ শতাংশ সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল জড়িত। বলেন, মোটরসাইকেল রাইড শেয়ারিং সার্ভিসও খুব বিপজ্জনক। আমরা যদি মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ করি, তাহলে প্রাণঘাতী সড়ক দুর্ঘটনার সংখ্যা কমবে।

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এবিএম আমিন উল্লাহ নুরী জানান, বাণিজ্যিক যানবাহনের আয়ুষ্কাল নির্ধারণ এবং সময়সীমা শেষ হওয়ার পর সেগুলো স্ক্র্যাপ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে বাস ও ট্রাকের জন্য নির্ধারিত লাইফলাইন বিষয়ে জানাতে তাকে নথি দেখতে হবে।

বৈঠকে অংশগ্রহণকারী একজন জানান, বাসের জন্য ২০ বছর এবং ট্রাকের জন্য ২৫ বছর আয়ুষ্কাল নির্ধারণ করেছেন। তবে বুয়েট বিশেষজ্ঞরা এ বিষয়ে মতামত দেয়ার পর এবং স্ক্র্যাপিংয়ের জন্য নির্দেশিকা চূড়ান্ত করার পরে এটি চূড়ান্ত করা হবে।

টাস্কফোর্সের সদস্য ও নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, পরিবহন নেতারা প্রায়ই বৈঠকে আধিপত্য বিস্তার করে তাদের ইস্যু নিয়ে কথা বলেন। জানান, তাকে এবং বুয়েটের ২ বিশেষজ্ঞকে ভার্চুয়ালি বৈঠকে যোগ দিতে বলা হয়। কিন্তু পরিবহন নেতাদের সশরীরে বৈঠকে যোগ দেয়ার অনুমতি দেয়া হয়। অন্তত ৫ জন পরিবহন নেতা সশরীরে বৈঠকে যোগ দেন।

বিএনএ/এ আর