Bnanews24.com
Home » জেলেদের উচ্ছ্বাস পরিণত হয়েছে বিষাদে
এক নজরে বৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃহত্তর চট্টগ্রাম সারাদেশ

জেলেদের উচ্ছ্বাস পরিণত হয়েছে বিষাদে

ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা শেষ হচ্ছে আজ

বিএনএ চাঁদপুর: সরকার আরোপিত ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে উচ্ছ্বাস-উদ্দীপনা নিয়ে নদীতে ইলিশ ধরতে নেমেছিলেন জেলেরা। তবে কাঙ্ক্ষিত মাছ না পেয়ে হতাশ হয়ে ফিরে আসছেন তারা। নদীতে ইলিশ কম পাওয়ায় প্রভাব পড়েছে আড়তেও।

বিক্রেতারা বলছেন, ইলিশ সরবরাহ কম থাকায় জেলেদের পাশাপাশি ক্ষতির মুখে পড়ছেন তারাও। দাম নিম্ন ও মধ্যবিত্ত মানুষের নাগালের বাইরে বলে জানিয়েছে মাছ কিনতে আসা ক্রেতারা।

সোমবার মধ্যরাত থেকে চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনায় ইলিশ ধরতে নেমেছে জেলেরা। মঙ্গলবার ভোর থেকে সকাল পর্যন্ত চাঁদপুরের হরিণা ফেরিঘাট এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, জেলেরা মাছ ধরতে কেউ জাল-নৌকা নিয়ে ছুটে চলছে মাঝ নদীতে। আবার অনেকেই মাছ ধরা শেষে ফিরে আসছেন তীরে।

তবে কাঙ্ক্ষিত মাছ না পেয়ে অধিকাংশ জেলেই হতাশ হয়ে ফিরছেন। ঘণ্টার পর ঘণ্টা জাল ফেলেও মাছের দেখা পাচ্ছেন খুবই অল্প। আর তাই নদীতে নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার পরও জেলেদের উচ্ছ্বাস পরিণত হয়েছে বিষাদে।

মোক্তার হোসেন নামের এক জেলে বলেন, ‘হারা রাইত (পুরো রাত) গাঙ্গো (নদীতে) জাল বাইছি, কিন্তু মাছের কোন দেহা (দেখা) নাই। আষ্টো (আট) জনে জাল বাইয়া ১০ হাজার টেহার মাছ বেচচি। অহন নৌকার খবর দিয়া কত টেহা (টাকা) পামু ভাগ করতে কইতে পারমু।’

জেলে হেলাল উদ্দিন বলেন, ‘অভিযান শেষ অওনে আমরা বড় আশা করই না গাঙ্গো নামছি। তয়, মাছ না পাওনে আমগো আশা ভাইঙ্গা গেছে। এত দিন যে ঋণ-ফিন কইরা চলচি, হেই টেহা কেমনে শোধ করমু আল্লায়ই জানে। আমনেও (ভবিষ্যতেও) যদি মাছ না পাই, তয় আমগো দুঃখের শেষ থাকবো না।’

ইলিশ ব্যবসায়ী বিল্লাল ছৈয়াল বলেন, ‘জেলেদের মতো আমরাও অনেক আশা নিয়ে আড়তে এসেছি। কিন্তু মাছ না থাকায় অনেক ক্ষতির মুখে পড়ছি। আমাদের যে লাখ লাখ টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে, এত কম মাছ ঘাটে আসলে সেই টাকা তোলা সম্ভব হবে না।’

বিএনএনিউজ২৪/ এমএইচ