ধামরাইয়ে অনৈতিক কাজ করতে গিযে ধরা, আটক ৪

বিএনএ, সাভার : ঢাকার ধামরাইয়ে সাত্তার নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে অনৈতিক কাজ করতে গিয়ে ৪ জন যুবক যুবতীকে আটক করে গ্রামবাসী। অনৈতিক কাজের ঘটনা ধামাচাপা দিতে নাটকীয় বিয়ের আয়োজন করা হয়েছে।

আরো পড়ুন

ঘরের মাঠে সিলেটের হার

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) ভোর রাতে উপজেলার গাংগুটিয়া ইউনিয়নের বালিয়াপাড়া জালসা গ্রামের সাত্তারের বাড়িতে দুইজন মেয়ে ও দুইজন ছেলেকে একই রুম থেকে আটক করা হয়। পরে ইউপি সদস্য সহ স্থানীয় কিছু লোকজন বালিয়া ইউনিয়নের বাস্তা নয়াচর গ্রামের আক্কাস আলীর ছেলে রাশেদুল ও গাংগুটিয়া ইউনিয়নের বালিয়াপাড়া জালসা গ্রামের এক গৃহবধূকে ছেড়ে দেয়।

সাত্তারের মেয়ে ও বালিয়াপাড়া জালসা গ্রামের বাবুলের ছেলে শাকিলকে বিয়ে দেয় বলে জানান সাত্তার।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়- দীর্ঘদিন ধরে গাংগুটিয়া ইউনিয়নের বালিয়াপাড়া জালসা গ্রামের সাত্তার নামের এক ব্যক্তির বাড়িতে অনৈতিক কাজের জন্য রুম ভাড়া পাওয়া যায়। সাত্তারের বাড়িতেই তার মেয়েসহ স্থানীয় এক গৃহবধূ এই অনৈতিক কাজের সাথে জড়িত রয়েছে। এমনকি বিভিন্ন এলাকার যুবকদের প্রেমের ফাঁদে ফেলে বাড়িতে ডেকে নিয়ে সর্বস্ব কেড়ে নেয়।

স্থানীয় লোকজন সাত্তারের বউ ও তার মেয়ের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করছে। তাদের এই অনৈতিক কাজে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে এলাকাবাসী। যার ফলে আটককৃত রাশেদুল ইসলামকে স্থানীয় যুবকরা উত্তম মাধ্যম দেয়।

সরেজমিনে গিয়ে এই অনৈতিক কাজ সম্পর্কে জানতে চাইলে গাংগুটিয়া ইউনিয়নের ০১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান মিজান সাংবাদিকদের টাকা দিয়ে ম্যানেজ করতে চায়। ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে অপ্রাপ্ত বয়সী সাত্তারের ছোট মেয়ের সাথে আটককৃত শাকিলের নাটকীয় বিয়ের আয়োজন করে ইউপি সদস্য মিজানসহ ওই বাড়ি থেকে সুবিধাভোগ করা স্থানীয় লোকজন।

ধামরাই উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা খালেদা আক্তার বলেন, বাল্য বিয়ে একটি সামাজিক ব্যাধি। এটি রাষ্ট্রবিরোধী কাজ। আমরা তদন্ত করে দেখবো। বাল্যবিয়ে হয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ধামরাই থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আতিকুর রহমান বলেন- এবিষয়ে কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিএনএ/ ইমরান খান, ওজি