Bnanews24.com
Home » সীমান্ত হত্যা শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনা সম্ভব: বিজিবি প্রধান
প্রতিরক্ষা

সীমান্ত হত্যা শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনা সম্ভব: বিজিবি প্রধান

বিজিবি প্রধান

বিএনএ,ঢাকা: কূটনৈতিক তৎপরতার পাশাপাশি জনসচেতনতা এবং অর্থনৈতিক উন্নয়ন হলে সীমান্ত হত্যা শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনা সম্ভব হবে বলে মনে করছেন বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ সাফিনুল ইসলাম।

রোববার (২০ ডিসেম্বর) পিলখানায় বিজিবি দিবসের অনুষ্ঠানে তিনি আরও বলেন,পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে কিছু অরক্ষিত সীমানা রয়েছে, সেগুলোকে নিয়ন্ত্রণে আনাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ। প্রযুক্তিগত দিক থেকে পৃথিবী এগিয়ে যাচ্ছে।বিজিবিও তাল মিলিয়ে সময় উপযোগী করে এগিয়ে যাচ্ছে।এক্ষেত্রে বাহিনীর সদস্যদের নতুন নতুন অনুশীলন ও প্রশিক্ষণ করতে হবে।বিজিবিকে সময়োপযোগি প্রযুক্তিগতভাবে এগিয়ে নেয়ার কাজ চলছে বলে জানান মেজর জেনারেল মোহাম্মদ সাফিনুল ইসলাম।

তিনি বলেন, করোনার জন্য প্রতি বছরের মতো এ বছর বিজিবি দিবস পালন করা হচ্ছে না।তাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে এই দিবস উদযাপন করা হচ্ছে।মহামারির এই পরিস্থিতিতেও বিজিবি প্রতিনিয়ত অভিযান পরিচালনা করে আসছে। এছাড়া, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে পদ্মা-মেঘনা-যমুনা ইছামতি নদীর পাশের জেলেদের একশটি নৌকা দেয়া হয়েছে বলেও জানান সাফিনুল ইসলাম।

এরআগে দিবসটি উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন সীমান্তরক্ষায় নিয়োজিত এ বাহিনীর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম।

উল্লেখ্য, সোয়া দুইশ বছরের ঐতিহ্যবাহী এই আধাসামরিক বাহিনীর নাম স্বাধীনতার আগে ছিল ইস্ট পাকিস্তান রাইফেলস।স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে এর নাম হয় বাংলাদেশ রাইফেলস।২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে পিলখানায় রক্তাক্ত বিদ্রোহ এবং ভয়াবহ হত্যাকাণ্ডের পর সীমান্তরক্ষা বাহিনীর নাম বদলে হয় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বা বিজিবি। বাহিনীর পোশাক ও পতাকাতেও পরিবর্তন আনা হয়। বিজিবি পুনর্গঠনের পর থেকে প্রতি বছর ২০ ডিসেম্বর বিজিবি দিবস হিসেবে পালন করা হচ্ছে।

বিএনএনিউজ/আরকেসি