Bnanews24.com
কভার জাতীয় টপ নিউজ মুক্তিযুদ্ধ রাজনীতি সব খবর

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বিএনএ ঢাকা: ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার(১৭ এপ্রিল) সকালে ধানমন্ডি-৩২ এ প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে শ্রদ্ধা জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

সে সময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মতিয়া চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, আফজাল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, মির্জা আজম, শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আবদুস সবুরসহ আরও অনেকে।

মুজিবনগর দিবস মেহেরপুর

এদিকে, মহামারি নভেল করোনা ভাইরাসের কারণে সব আয়োজন বন্ধ রেখে স্বল্প পরিসরে দিবসটি উদ্‌যাপন করছে মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগ। শনিবার সকাল ৬টার দিকে মুজিবনগর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিকেন্দ্রে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে মুজিবনগর দিবসের শুভ সূচনা করা হয়। জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) ড. মুনসুর আলম খান।

সে সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জামিরুল ইসলাম, জেলা আনসার কমান্ডার রাকিবুল ইসলামসহ আনসার ভিডিপি ও পুলিশ সদস্যেরা। পতাকা উত্তোলন শেষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন ও বীর শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনায় করে মোনাজাত করা হয়।

এছাড়া সকাল ৯ টার দিকে মুজিবনগর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিকেন্দ্রে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষে শ্রদ্ধা জানান জাতীয় সংসদের হুইপ জয়পুরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন।

এরপর স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে শ্রদ্ধা জানান বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা। এছাড়া শ্রদ্ধা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন প্রমুখ।

১৯৭১ এর ১৭ই এপ্রিল। সেদিন ছিল শনিবার। মেহেরপুরের বৈদ্যনাথ তলার আমবাগানে চৌকি পেতে তৈরি করা হয় মঞ্চ। সেই চৌকির ওপর দাঁড়িয়ে শপথ নেয় ঐতিহাসিক মুজিবনগর সরকার।

৪৫ মিনিটের শপথ অনুষ্ঠানে সমবেত কণ্ঠে জাতীয় সংঙ্গীত গাওয়া হয়। মানচিত্র খচিত স্বাধীন বাংলার পতাকা তোলেন অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম। স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ করেন আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের চিফ হুইপ অধ্যাপক ইউসুফ আলী।

১২টি মন্ত্রণালয় নিয়ে গঠিত সরকারে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রাষ্ট্রপতি, সৈয়দ নজরুল ইসলামকে উপ-রাষ্ট্রপতি, তাজউদ্দিন আহমেদকে প্রধানমন্ত্রী, খন্দকার মোশতাক আহমেদকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী, ক্যাপ্টেন এম. মনসুর আলীকে অর্থমন্ত্রী ও এ এইচ এম কামারুজ্জামানকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়া হয়। জেনারেল আতাউল গনি ওসমানীকে করা হয় মুক্তিবাহিনীর প্রধান কমান্ডার।

মুজিবনগর সরকারের শপথের দিন ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামকে গার্ড অব অনার প্রদান করেন ১২ জন আনসার সদস্য।

শপথ অনুষ্ঠানে ভাষণ দেন উপ-রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম ও প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ। নতুন রাষ্ট্রের কূটনৈতিক স্বীকৃতি দান ও সামরিক সাহায্যের জন্য বিশ্ববাসীর কাছে আবেদন জানান তারা।

এরপরই পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ যুদ্ধ প্রবল রূপ নেয়। মুজিবনগর সরকারের সফল নেতৃত্বে ৯ মাসের যুদ্ধ শেষে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীন হয় বাংলাদেশ।

বিএনএনিউজ/আরকেসি