Bnanews24.com
Home » বইমেলায় এবার বিক্রি সাড়ে ৫২ কোটি টাকা
বাংলাদেশ সব খবর

বইমেলায় এবার বিক্রি সাড়ে ৫২ কোটি টাকা

বিএনএ, ঢাকা : অমর একুশে বইমেলা ৩১ দিন অতিক্রম করে আজ পর্দা নামলো। এবার মেলায় ৫২ কোটি ৫০ লাখ টাকার বই বিক্রি হয়েছে বলে জানিয়েছে বাংলা একাডেমি। এরমধ্যে বাংলা একাডেমির মোট বিক্রি হয়েছে ১ কোটি ৩৫ লাখ টাকার বই।

বৃহস্পতিবার (১৭ মার্চ) মেলার  শেষ দিন সন্ধ্যায় বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে সমাপনী অনুষ্ঠানে বইমেলার সদস্য সচিব জালাল আহমেদ তার প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরেন। তবে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ দাবি করেন— এবারের মেলায় বিক্রির পরিমাণ শতকোটি টাকার মতো।

জালাল আহমেদ বলেন, বইমেলায় বাংলা একাডেমি-সহ সকল প্রতিষ্ঠানের বই ২৫ শতাংশ কমিশনে বিক্রি   হয়েছে।  ২০২০ সালে বাংলা একাডেমি মোট ২ কোটি ৪৬ লাখ টাকার বই বিক্রি করেছিল। এবার ১৬ মার্চ পর্যন্ত ৩০ দিনে বাংলা একাডেমি ১ কোটি ২৭ লাখ টাকার বই বিক্রি করেছে। ২০২১ সালে একাডেমি মাত্র ৪৬ লাখ টাকার বই বিক্রি করেছিল। ২০২০ সমগ্র মেলায়  ৮২ কোটি টাকার  বই বিক্রি হয়েছিল।

বই মেলার শেষদিন নতুন বই এসেছে ২১৫টি। এরমধ্যে গল্প ২৯টি, উপন্যাস ২৭টি, প্রবন্ধ ৯টি, কবিতা ৭৩টি, গবেষণা ৫টি, ছড়া ৫টি, শিশুসাহিত্য ৮টি, জীবনী ৩টি, রচনাবলী ৩টি, মুক্তিযুদ্ধ ৪টি, নাটক ১টি, ধর্মীয় ৩টি, অনুবাদ ২টি, সায়েন্স ফিকশন ১২টি, ভ্রমণ ৩টি, ইতিহাস ৬টি, রাজনীতি ১টি, চিকিৎসা/স্বাস্থ্য ২টি, বঙ্গবন্ধু ৬টি, রম্য/ধাঁধা ৩টি, বিজ্ঞান ২টি, অভিধান ১ ও অন্যান্য ৭টি।

এদিকে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০২তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসের কর্মসূচি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০২তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে বাংলা একাডেমি বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করে।

সকাল সাড়ে ৮টায় জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে বাংলা একাডেমির পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। বিকেল ৩টায় অমর একুশের মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও   কর্ম   নিয়ে  আলোচনা   অনুষ্ঠান।

অমর একুশে বই মেলায় স্বাগত বক্তৃতা  প্রদান করেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধ্যাপক হারুন-অর-রশিদ। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন   নজরুল ইসলাম, স্বদেশ রায় এবং মিজানুর রহমান। সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির সভাপতি কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন।

আলোচকবৃন্দ বলেন, বাংলার জনগণের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা ও অগাধ বিশ্বাস ছিল বঙ্গবন্ধুর হৃদয়ে।  তিনি বিশ্বাস করতেন জনগণই ইতিহাস রচনা করে। তাই জনগণকে  ইতিহাসের  রূপকার  হিসেবে  গড়ে  তোলার   ক্ষেত্রে  নেতৃত্ব দেন বঙ্গবন্ধু। এভাবেই বঙ্গবন্ধু বাঙালির হাজার বছরের   স্বাধীনতার  আকুতিকে  বাস্তব রূপ দিয়েছেন।

সভাপতির বক্তব্যে কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন  বলেন, আমাদের শিশুদেরকে বঙ্গবন্ধুর চেতনা ও ভাবনায় উদ্দীপ্ত করতে হবে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মানবিকবোধ শিশুদের মাঝে সঞ্চারিত করতে পারলে আলোকিত বাংলাদেশ গড়ে তোলা সম্ভব হবে।

বিকেল  ৪ টায়   ভাষা শহীদ   মুক্তমঞ্চে   শিশু-কিশোরদের   অংশগ্রহণে   অনুষ্ঠিত   হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। অমর একুশে বইমেলার সমাপনী অনুষ্ঠান বিকেল  ৫টায় সমাপনী  অনুষ্ঠানে   শুভেচ্ছা  বক্তৃতা করেন একাডেমির মহাপরিচালক কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা।

প্রধান   অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব অসিম কুমার দে। সভাপতিত্ব   করেন   বাংলা  একাডেমির  সভাপতি কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন।

বিএনএননিউজ/এইচ.এম।