Bnanews24.com
Home » বিপ্লব যুগের অবসান, ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী মানিক
টপ নিউজ বিশ্ব ভারত সব খবর

বিপ্লব যুগের অবসান, ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী মানিক

বিপ্লব যুগের অবসান, ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী মানিক

বিএনএ ডেস্ক: বিপ্লব দেবের পরে মানিক সাহা। ত্রিপুরায় দলের রাজ্য সভাপতিকেই পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে বেঁছে নিলো বিজেপি। পেশায় চিকিৎসক মানিক এখন রাজ্যসভার সাংসদ। মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেয়ার পর ছ’মাসের মধ্যে তাঁকে কোনও বিধানসভা আসন থেকে জিতিয়ে আনতে হবে। তবে সেটা খুব একটা কঠিন হবে না বিজেপির জন্য। ৬০ আসনের ত্রিপুরায় বিজেপি গত বিধানসভা নির্বাচনে ৪৪টিতে জয় পেয়েছিল।

শনিবার বিকেলে আচমকাই পদত্যাগ করেন বিপ্লব কুমার দেব। শুক্রবার বিপ্লবকে দিল্লি ডেকে পাঠান বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। সেখানে গিয়ে প্রথমে বিজেপি সভাপতি জেপি নড্ডা ও পরে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তিনি। ফিরে এসেই তাঁর পদত্যাগের পরে মনে করা হচ্ছিল কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের নির্দেশই পালন করেছেন তিনি।

বিপ্লবের ইস্তফার পর থেকেই জল্পনা শুরু হয়ে যায় কে হবেন পরের মুখ্যমন্ত্রী। বৈঠকে বসে বিজেপি নেতৃত্ব এবং ত্রিপুরার পরিষদীয় দল। তবে আগেই মানিকের নাম চূড়ান্ত করে দিয়েছিল কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব।

মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার দৌঁড়ে মানিকের সঙ্গে ছিলেন রাজ্যের উপ-মুখ্যমন্ত্রী জিষ্ণু দেববর্মা। তবে চারিলাম আসনের বিধায়ককে পিছনে ফেলে এগিয়ে গেলেন মানিক। গত এপ্রিল মাসেই রাজ্যসভায় গিয়েছেন মানিক। শপথ নেন ৩ এপ্রিল। সাংসদ জীবনের দু’মাস পূর্ণ হওয়ার আগেই মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিতে চলেছেন তিনি।

ইস্তফা দেয়ার পরে বিপ্লব বলেন, “দল চাইছে ২০২৩-এর নির্বাচনের আগে সংগঠনের শক্তি বাড়াতে। দীর্ঘ সময় সরকারে থাকার জন্য সংগঠনের শক্তি বাড়ানোর দরকার। সংগঠন থাকলে তবেই সরকার থাকবে। তাই দল আমাকে সংগঠনের কাজে লাগাতে চাইছে।”

জিম প্রশিক্ষক থেকে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লবের রাজনৈতিক উত্থান অনেকটাই উল্কার গতিতে। ২০১৮ সালে তাঁর নেতৃত্বেই ত্রিপুরায় আড়াই দশকের বাম শাসনের অবসান ঘটায় বিজেপি।সাংগঠনিক কৃতিত্ব হিসেবে সভাপতি পদ থেকে সরিয়ে সেই সময় বিপ্লবকেই ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে বেছে নেন মোদী-শাহরা। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তাঁর কার্যকালে সন্তুষ্ট ছিলেন না বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্ব। তাঁর সঙ্গে সঙ্ঘাতের জেরেই দল ছেড়ে কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন সুদীপ রায় বর্মণ সহ বেশ কিছু বিধায়ক।

এর আগে গুজরাট ও উত্তরাখণ্ডেও মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই মুখ্যমন্ত্রী বদল করেছে বিজেপি। এবং মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে সরিয়ে সাংগঠনিক দায়িত্ব দেয়া হয়েছে ওই পদত্যাগীদের। এ বার সেই পথের পথিক হতে পারেন বিপ্লব।

বিএনএ/এ আর