Bnanews24.com
আদালত এক নজরে চট্টগ্রাম সব খবর

আদালতে হেফাজত নেতা হারুন ইজাহারের জবানবন্দি

হেফাজত নেতা হারুন ইজহার গ্রেপ্তার

বিএনএ,চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে সহিংসতার ঘটনায় করা মামলায় আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন হেফাজতের সাবেক শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক মুফতি হারুন ইজাহার। বুধবার (১২ মে) চট্টগ্রামের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বেগম আঞ্জুমান আরার আদালতে জবানবন্দি দেন তিনি।

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে আজ দুপুরে তাকে আদালতে হাজির করা হয়। বিষয়টি জানিয়েছেন চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম) আফজারুল হক টুটুল। তিনি জানান, গত ২৬ মার্চ হাটহাজারীতে ভাঙচুরের ঘটনায় সম্পৃক্ততা থাকার বিষয়টি স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

গতকাল মঙ্গলবার (১১ মে) দুপুরে চট্টগ্রামের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট খন্দকার কৌশিক আহমেদের আদালত শুনানি শেষে হারুন ইজাহারের ফের তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। এর আগে ২৮ এপ্রিল (বুধবার) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় চট্টগ্রাম নগরীর লালখানবাজার জামেয়াতুল উলুম আল ইসলামিয়া মাদ্রাসায় অভিযান চালিয়ে মুফতি হারুন ইজহারকে আটক করা হয়। পরে ২৯ এপ্রিল চট্টগ্রামের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আনজুমান আরার আদালতে হাজির করার পর পুলিশ ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানালে ভার্চুয়ালি শুনানি শেষে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়। এরপর ৩ মে তিনদিন করে ৯ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিন।

মুফতি হারুন ইজহার ইসলামী ঐক্যজোটের একাংশের চেয়ারম্যান মুফতি ইজহারুল ইসলামের ছেলে।

উল্লেখ, ২০১৩ সালের ৭ অক্টোবর চট্টগ্রাম নগরীর লালখানবাজার মাদ্রাসায় হ্যান্ড গ্রেনেড বানাতে গিয়ে বিস্ফোরণে তিনজন মারা যান এবং ৫ জন আহত হয়েছিলেন। পরে পুলিশ সেখানে তল্লাশি চালিয়ে চারটি তাজা গ্রেনেড, ১৮ বোতলে ৫০০ গ্রাম করে ৯ হাজার গ্রাম এসিড এবং গ্রেনেড তৈরির বিপুল পরিমাণ সরঞ্জাম উদ্ধার করেছিল। ওই ঘটনায় তিনি গ্রেপ্তার হয়ে দীর্ঘদিন কারাগারে ছিলেন এবং তার বাবা ইজহারুল ইসলামের বিরুদ্ধেও মামলা বিচারাধীন। এ ঘটনায় ৩টি ও হেফাজতের নাশকতার ৮ মামলাসহ মোট ১১টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে হারুন ইজাহারের বিরুদ্ধে।

এছাড়া রাজধানীর শাপলা চত্বরে হেফাজতের লংমার্চের সময় সংঘর্ষ ও নাশকতার ঘটনায় দায়ের হওয়া তিনটি মামলায়ও তিনি আসামি। তার বিরুদ্ধে আগের ১৭টির পাশাপাশি এবার নতুন করে আরও ৫টি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। এ নিয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা মোট ২২টি।

এছাড়া ২০১০ সালে আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন লস্কর-ই-তৈয়বার সঙ্গে কানেকশনের অভিযোগে একবার মুফতি হারুন ইজাহার গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। ২০০৯ সালে গ্রেপ্তার হওয়া লস্কর-ই-তৈয়বার দুই জঙ্গি নাজের ওরফে নাজের পারবন এবং শফিক ওরফে সাহাফাজ শামসুদ্দিন পুলিশকে জানায়, তাদের সঙ্গে মুফতি হারুনের কয়েক দফা বৈঠক হয়। তারা মার্কিন ও ভারতীয় দূতাবাসে হামলার পরিকল্পনা নিয়েছিল।

বিএনএনিউজ/মনির