Bnanews24.com
চট্টগ্রাম সংগঠন সংবাদ সব খবর

মুক্তিযোদ্ধা আহমেদ আমিন চৌধুরী আর নেই‌

মুক্তিযোদ্ধা আহমেদ আমিন চৌধুরী আর নেই‌

বিএনএ,চট্টগ্রাম : বীর মুক্তিযোদ্ধা, অবসরপ্রাপ্ত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও লেখক আহমেদ আমিন চৌধুরী গতকাল (০৮এপ্রিল) সকাল ৬ টায় ঢাকার একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহে ওয়াইন্না ইলাইহে রাজিউন)। মৃত্যুকালে তাঁর রয়স হয়েছিল ৭২ বছর। বাদ মাগরিব জানাজা শেষে তাঁকে রাউজানের নোয়াজিশপুর পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয় এবং বাংলাদেশ পুলিশের পক্ষ থেকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়। মৃত্যুকালে তিনি তিন কন্যা, দুই পুত্র ও ভাই-বোনসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন এবং গুণগ্রাহী রেখে যান।

আহমেদ আমিন চৌধুরী ১৯৫০ সালের ১৫ জানুয়ারি চট্টগ্রাম জেলার রাউজান উপজেলার নোয়াজিশপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা চট্টলতত্ত্ববিদ গবেষণায় মরোণত্তর একুশে পদক প্রাপ্ত আবদুল হক চৌধুরী , মাতা জুবাইদা বানু চৌধুরী। আহমেদ আমিন চৌধুরী ১৯৬৯ সালে স্নাতক ডিগ্রী লাভের পর ১৯৭১ সালের ৪ঠা জানুয়ারি তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তান পুলিশ সার্ভিসে সাব ইন্সেপেক্টর ক্যাডেট হিসেবে যোগদান করেন। স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হলে ১২ এপ্রিল ১৯৭১ সালে তিনি সারদা পুলিশ একাডেমি থেকে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের জন্য ভারত চলে যান। দীর্ঘ কর্মজীবন শেষে মুক্তিযোদ্ধা এই অফিসার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে ১৪ জানুয়ারি ২০০৭ সালে অবসর গ্রহণ করেন।

পেশাগত জীবনে মালেশিয়ায় উচ্চতর প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন এবং নামিবিয়ার স্বাধীনতা প্রক্রিয়ায় ‘আনটাগ’ বাহিনীতে দায়িত্ব পালন করেন।

পেশাগত জীবনের বাইরে তাঁর রচিত ও প্রকাশিত গ্রন্থ সমূহ : (১) ইতিহাস ও ঐতিহ্য – ১৯৯০ (২) বাংলাদেশ পুলিশ উত্তরাধিকার ও ব্যবস্থাপনা – ১৯৯৫ (৩) চট্টগ্রামী শব্দ সম্ভার – ১৯৯৮ (৪) পুলিশ আইন সহায়িকা – ২০০৪ (৫) চট্টগ্রামী ভাষার অভিধান ও লোকাচার – ২০০৯ (৬) সিলেটি আঞ্চলিক ভাষার অভিধান – ২০০৯ (৭) চট্টগ্রামী ডাক – দিস্তান ধাঁ ধাঁ ও হাস্তর – ২০১১ (৮) ইতিহাসের আলোকে মুক্তিযুদ্ধ ও রাউজান – ২০১১ (৯) ই.এ. চৌধুরী স্মৃতি আলেখ্য – ২০১৬ (১০) বাংলাদেশ পুলিশ লেখক অভিধান – ২০১৭ (১১) পূণ্য ভূমি কাবার পথে – ২০১৭ (১২) চট্টগ্রাম বিচিত্রা -২০১৮ (১৩) নামিবিয়ার স্বাধীনতায় আমরা – ২০১৮ (১৪) পুলিশ একাডেমি সারদা ও ৭১ এর প্রতিরোধ যুদ্ধের ইতিহাস – ২০১৮ (১৫) কানাডার অন্টারিওর দিনগুলি – ২০২০ (১৬) প্রবন্ধ সংকলন (যন্ত্রস্থ)।

তিনি এশিয়াটিক সোসাইটি অব বাংলাদেশ, বাংলা একাডেমি, ইতিহাস পরিষদ – ঢাকা, ঢাকাস্থ চট্টগ্রাম সমিতি, চাঁটগা ভাষা পরিষদ – চট্টগ্রাম, রাউজান একাডেমি – চট্টগ্রাম ও ঢাকাস্থ রাউজান সমিতির আজীবন সদস্য। ২০০৯ সালে কবি নবীন চন্দ্র সেন সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন। তাছাড়া ও তিনি বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক ও সেবামূলক সংগঠনের পৃষ্ঠপোষক ছিলেন।