Bnanews24.com
চট্টগ্রাম সব খবর স্বাস্থ্য

নিরাপত্তাহীনতায় স্বাস্থ্যকর্মীরা

নিরাপত্তাহীনতায় স্বাস্থ্যকর্মীরা

বিএনএ, চট্টগ্রাম অফিস : লকডাউনের রাতে চট্টগ্রাম শহরের বিভিন্ন হাসপাতাল, ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকগুলো নারীকর্মীদের পরিবহন সুবিধা না দিয়ে মধ্যরাতে ছেড়ে দিচ্ছে। এমন অভিযোগ করেছেন অসংখ্য স্বাস্থ্যকর্মী। তারা বলেন, রাত ১১-১২টায় রাস্তায় রিক্সা্ পাওয়াও মুশকিল হয়ে পড়ে। সড়ক বাতি না থাকায় অনেক রাস্তা ও গলি উপগলি অন্ধকারাচ্ছন্ন থাকছে। এতে তারা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্বাস্থ্যকর্মীরা জানান, কয়েকদিন থেকে সন্ধ্যা ছটার পর থেকে দোকানপাট ও মার্কেট সমূহ বন্ধ, রাত৯টা-১০টার পর সড়কে বাস,মিনিবাস, টেম্পো চলাচল না থাকায় তাদের অনেকদূর পথ রিকশা পরিবর্তন করে করে একা একা যেতে হচ্ছে।
তারা বলেন, গুটি কয়েক হাসপাতাল ও ক্লিনিক কর্মীদের আনা নেয়ার ব্যবস্থা করলেও বেশিরভাগ প্রতিষ্টান কর্মীদের নিরাপত্তার বিষয়কে মোটেই গুরুত্ব দিচ্ছে না।
স্বাস্থ্যকর্মীরা জানান দু’ একটি বড় বড় প্রতিষ্টান নিরাপত্তার কথাভেবে নারী কর্মীদের সকাল ৮-বেলা ২টা, বেলা-২টা থেকে-রাত৮টা পর্যন্ত কাজ করাচ্ছে।কিংবা নিজস্ব পরিবহণে তাদের পৌঁছে দিচ্ছে। অভিযোগকারীরা এসব প্রতিষ্টানকে সাধুবাদ জানান।

গতবছর লকডাউনের সময় স্বাস্থ্যকর্মীদের যাওয়া আসার সময় চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ(সিএমপি)কর্তৃপক্ষ পরিবহনসুবিধা প্রদানসহ নানাভাবে সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছিল। স্বাস্থ্যকর্মীরা স্বীকার করেন,বর্তমানে হাসপাতাল,ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে রোগীর অত্যাধিক চাপ রয়েছে।সন্ধ্যার পরও বিভিন্ন দূর এলাকা হতে রোগীরা আসছেন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও কোভিড-১৯ রোগ বৃদ্ধি পাওয়ায় চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসন দেশব্যাপী লকডাউন ঘোষণার আগেই সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে সব ধরনের জনসমাগম, বিপনী বিতান,বিনোদন কেন্দ্র, কমিউনিটি সেন্টার বন্ধ ঘোষণা করে। সোমবার(৫এপ্রিল)হতে একসপ্তাহের জন্য দেশব্যাপী লকডাউন শুরু হয়েছে।বন্ধ রয়েছে আন্ত:জেলা যাত্রী পরিহনকারী বাস,ট্রেন,বিমান ও লঞ্চ চলাচল।সন্ধ্যা ৬টা হতে ওষধ ও খাবারের দোকান ছাড়া সবধরনের দোকান বন্ধ থাকছে।
বিএনএনিউজ২৪/ আমিন মুহাম্মদ