বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের রাস্তা পারাপারে নেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা

বিএনএ, ববি: বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের রাস্তা পারাপারে নিরাপত্তার জন্য নেই ফুট ওভারব্রিজ ও পর্যাপ্ত গতিনিরোধক ব্যবস্থা। বিশ্ববিদ্যালয়ের মেইন গেট, ভিসি গেট, লাইব্রেরি গেট ও ভোলা রোড গেটসহ চারটি গেটের একটিতেও নেই ফুট ওভারব্রিজ। মেইন গেটে একটি গতিনিরোধক থাকলেও অন্য গেট গুলোতে নেই কোন গতিনিরোধক।

আরো পড়ুন

সরেজমিনে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যস্ততম মেইনগেট সংলগ্ন সড়কে একটি মাত্র গতিনিরোধক রয়েছে, যা বরিশাল থেকে ভোলা-পটুয়াখালীগামী যানবাহনগুলোর গতি নিয়ন্ত্রণ করে। কিন্তু বিপরীত দিক থেকে আসা যানবাহনগুলোর গতি নিয়ন্ত্রণে কোন গতিনিরোধক ব্যবস্থা না থাকায় শিক্ষার্থীদেরকে রাস্তা পারাপার চরম ঝুঁকিতে ফেলেছে। এ অবস্থায় শিক্ষার্থীদের দাবি, দ্রুত ফুটওভার ব্রিজ ও গতিনিরোধক দিয়ে তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

মাস্টার্সে অধ্যয়নরত রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী তাসাহুদ আলী বলেন, জীবনের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেইন গেট, ভিসি গেট, লাইব্রেরি গেট ও ভোলা রোড গেটের পাশে ফুটওভার ব্রিজ অথবা পর্যাপ্ত গতিনিরোধক দেওয়া জরুরি।

তিনি আরো বলেন, আমাদের এই যৌক্তিক দাবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন চাইলেই খুব দ্রুত যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে বাস্তবায়ন করতে পারেন। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের রাস্তা পারাপারে কোন ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আগেই  আমাদের যৌক্তিক দাবি বাস্তবায়ন করুন।

সাধারণ শিক্ষার্থীরা জানান, বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার এক যুগ হতে চলেছে, তবুও ববি প্রশাসন শিক্ষার্থীদের রাস্তা পারাপারে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারেনি।

এ বিষয়ে অর্থনীতি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী সারোয়ার আহমেদ সাইফ বলেন, প্রতিদিন শিক্ষার্থীদের ঝুঁকিপূর্ণ রাস্তা পারাপার দেখেও বর্তমান বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার বিষয়ে তাদের উদাসীনতার পরিচয় দিচ্ছে। তাই, শিক্ষার্থীদের প্রতি উদাসীনতা না দেখিয়ে রাস্তা পারাপারের জন্য ফুট ওভারব্রিজ না হলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি গেট সংলগ্ন মহাসড়কে গতিনিরোধক দিয়ে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিকট জোর দাবি জানাচ্ছি।

এ বিষয়ে প্রক্টর ড. মো. খোরশেদ আলম বলেন, সড়কে স্পিডব্রেকার স্থাপনের ক্ষেত্রে আমাদের কোনো এখতিয়ার নেই। এটি সড়ক ও জনপদ বিভাগের দায়িত্বে পড়ে। তাই, আমরা শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে; যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে বিষয়টি উপস্থাপন করার মাধ্যমে স্পিডব্রেকার স্থাপনের ব্যবস্থা করবো।

বিএনএ/ রবিউল, এমএফ