ক্ষুদ্রশিল্প উদ্যোক্তাদের ‘ঋণ প্রদান’ সহায়ক নীতিমালার খসড়া চূড়ান্ত

বিএনএ, ঢাকা : ‘করোনাভাইরাস প্রভাব মোকাবিলায় কুটির, মাইক্রো ও ক্ষুদ্রশিল্প উদ্যোক্তাদের দ্রুত ঋণ প্রদান’ সহায়ক নীতিমালার খসড়া চূড়ান্ত করা হয়েছে। খুব শিগগিরই অর্থমন্ত্রীর অনুমোদনের পর এটি কার্যকর হবে। এক্ষেত্রে, করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত কুটির, মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি (সিএমএসএমই) উদ্যোক্তাদের সর্বোচ্চ ৫০ লাখ ও সর্বনিম্ন ১০ লাখ টাকা ঋণ দিচ্ছে সরকার। ঋণ প্রদান সংক্রান্ত একটি নীতিমালা এরই মধ্যে চূড়ান্ত করা হয়েছে।

আরো পড়ুন

কক্সবাজারে আরসা কমান্ডার সহ আটক ৫ 

অনূর্ধ্ব -১৯ নারী বিশ্বকাপ শিরোপা জিতল ভারত

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, এই খাতে নতুন তহবিল থেকে ঋণ দেয়া হবে। তবে এ ঋণের অর্থ দিয়ে গ্রাহক তার আগের নেয়া কোনো ঋণ সমন্বয় বা পরিশোধ করতে পারবেন না।

জানা গেছে, সিএমএসএমই (কটেজ, মাইক্রো, স্মল অ্যান্ড মিডিয়াম এন্টারপ্রাইজ) খাতকে ঋণ দেয়ার জন্য তহবিলের অর্থ দেবে বাংলাদেশ ব্যাংক বা অর্থ মন্ত্রণালয়। সে তহবিলের অর্থ প্রথমে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে দশমিক ৫০ শতাংশ সুদে ঋণ দেবে বাংলাদেশ ব্যাংক। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান আবার আড়াই শতাংশ সুদে সেটি বিতরণ করবে ক্ষুদ্রঋণ সংস্থা (এমএফআই) ও অন্যান্য ঋণ সংস্থার কাছে। এসব সংস্থা ওই তহবিলের অর্থ গ্রাহককে দেবে ১৪ শতাংশ সুদে। তবে এর মধ্যে গ্রাহক পরিশোধ করবে ৯ শতাংশ। এই তহবিলের মেয়াদ হবে ৫ বছর।

জানা গেছে, করোনার প্রভাব মোকাবিলায় ১ লাখ ২১ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। এর মধ্যে ২০ হাজার কোটি টাকা হচ্ছে এসএমই খাতের জন্য। তবে ডিসেম্বর পর্যন্ত এসএমই খাতে ১০ হাজার কোটি টাকার ঋণ বিতরণ করা হয়। এসব প্যাকেজ বাস্তবায়নে কী ধরনের সমস্যা, সেটি শনাক্ত করতে দেশের অর্থনীতিবিদ, শিল্প উদ্যোক্তা ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন পেশাজীবী নিয়ে সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয় একটি সিরিজ বৈঠক আয়োজন করেছে।

খসড়া নীতিমালায় আরো বলা হয়, গ্রাহক একক বা গ্রুপ পর্যায়ে সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা, কটেজ উদ্যোক্তা সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা এবং মাইক্রো উদ্যোক্তা সর্বোচ্চ ৩০ লাখ টাকা এবং স্মল উদ্যোক্তা ঋণ সহায়তা পাবেন ৫০ লাখ টাকা।
বিএনএনিউজ/জেবি