29 C
আবহাওয়া
৬:৫২ পূর্বাহ্ণ - জুলাই ১৬, ২০২৪
Bnanews24.com
Home » মুফতি হারুন ইজাহারসহ ২জন কারাগারে

মুফতি হারুন ইজাহারসহ ২জন কারাগারে

হেফাজত নেতা হারুন ইজহার গ্রেপ্তার

বিএনএ, চট্টগ্রাম অফিস : চট্টগ্রামের হাটহাজারীর ৩টি সহিংসতার মামলায় হেফাজতের বিলুপ্ত কমিটির শিক্ষা ও সংস্কৃতি সম্পাদক মুফতি হারুন ইজাহার ও তার সহযোগী গোলাম রাব্বানীকে গ্রেফতার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।বৃহস্পতিবার(২৯এপ্রিল) বিকেলে জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আনজুুমান আরার আদালতে তাদের হাজির করার পর পুলিশ ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানালে শুনানি শেষে আদালত কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়।

এর আগে ২৮ এপ্রিল বুধবার রাত সাড়ে ১২টায় চট্টগ্রাম নগরীর লালখানবাজার জামেয়াতুল উলুম আল ইসলামিয়া মাদ্রাসায় অভিযান চালিয়ে মুফতি হারুন ইজহারকে আটক করা হয়। মুফতি হারুন ইজহার ইসলামী ঐক্যজোটের একাংশের চেয়ারম্যান মুফতি ইজহারুল ইসলামের ছেলে।গত ২৬ মার্চ ঢাকায় পুলিশের সাথে সংঘর্ষের ঘটনার জের ধরে হাটহাজারী ও পটিয়ায় সহিংসতার ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনায় সন্ত্রাসী বিরোধী আইনের পৃথক সাতটি মামলায় ৪ হাজার ৩শ জনকে আসামি করা হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ৭ অক্টোবর চট্টগ্রাম নগরীর লালখানবাজার মাদ্রাসায় হ্যান্ডগ্রেনেড বানাতে গিয়ে বিস্ফোরণে তিনজন মারা যায় এবং  ৫ জন আহত হয়েছিল। পরে পুলিশ সেখানে তল্লাশি চালিয়ে চারটি তাজা গ্রেনেড, ১৮ বোতলে ৫০০ গ্রাম করে নয় হাজার গ্রাম অ্যাসিড এবং গ্রেনেড তৈরির বিপুল পরিমাণ সরঞ্জাম উদ্ধার করেছিল। ওই ঘটনায় তিনি গ্রেপ্তার হয়ে দীর্ঘদিন কারাগারে ছিলেন এবং তার পিতা মুফতি ইজহারুল ইসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধেও মামলা বিচারাধীন। এ ঘটনায় ৩টি ও হেফাজতের নাশকতার ৮ মামলাসহ মোট ১১টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে হারুন ইজহারের বিরুদ্ধে।

এছাড়া রাজধানীর শাপলা চত্বরে হেফাজতের লংমার্চের সময় সংঘর্ষ ও নাশকতার ঘটনায় দায়ের হওয়া তিনটি মামলায়ও তিনি আসামি। এছাড়া ২০১০ সালে আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন লস্কর-ই-তৈয়বার সঙ্গে কানেকশনের অভিযোগে একবার মুফতি হারুন ইজহার গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। ২০০৯ সালে গ্রেপ্তার হওয়া লস্কর-ই-তৈয়বার দুই জঙ্গি নাজের ওরফে নাজের পারবন এবং শফিক ওরফে সাহাফাজ শামসুদ্দিন পুলিশকে জানায়, তাদের সঙ্গে মুফতি হারুনের কয়েক দফা বৈঠক হয়। তারা মার্কিন ও ভারতীয় দূতাবাসে হামলার পরিকল্পনা নিয়েছিল।

বিএনএনিউজ/মনির,এসজিএন

 

Loading


শিরোনাম বিএনএ