32 C
আবহাওয়া
১:৩১ অপরাহ্ণ - জুলাই ১৪, ২০২৪
Bnanews24.com
Home » নিষ্ঠা, সততা ও সাহসের মূর্তপ্রতীক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

নিষ্ঠা, সততা ও সাহসের মূর্তপ্রতীক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

মানবাধিকার সুরক্ষায় সরকার বদ্ধপরিকরঃপ্রধানমন্ত্রী

বিএনএ, ডেস্কঃ বাংলার গণমানুষের নন্দিত নেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম শুভ জন্মদিন উপলক্ষে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীসহ দেশ-বিদেশের মানুষ তার দীর্ঘায়ু কামনা করে দোয়া ও আশীর্বাদ করছেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের কোল আলো করে ১৯৪৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর গোপালগঞ্জ জেলার ছায়া সুনিবিড় টুঙ্গিপাড়া গ্রামে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে তিনি জ্যেষ্ঠ। রাজনৈতিক পরিবারে জন্মগ্রহণের সুবাদে শৈশব থেকেই সংগ্রামী চেতনার সুমহান উত্তরাধিকার বহন করছেন।

ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের প্রবক্তা স্বপ্নদর্শী এই নেতা ১৯৮১ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব গ্রহণের পর থেকে দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে দলকে সুসংগঠিত করেন এবং ১৯৯৬ সালে প্রথম, ২০০৮ সালে দ্বিতীয় এবং ২০১৪ সালে তৃতীয় এবং ২০১৮ সালে চতুর্থ বারের মতো নির্বাচনে জয়লাভ করে দলকে দেশের নেতৃত্বের আসনে বসাতে সক্ষম হন।

বিএনএ/এমএফ

পিতার সংগ্রামী জীবনের আত্মত্যাগ কাছ থেকে দেখেছেন, শিখেছেন। ছাত্রলীগের নেত্রী শেখ হাসিনা ইডেন মহিলা কলেজের নির্বাচিত ভিপি হিসেবে ’৬৯-এর গণআন্দোলনে সক্রিয় সংগঠকের ভূমিকা পালন করেছেন। মহান মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব প্রদানকারী দল আওয়ামী লীগকে দীর্ঘ ৩৯ বছর নিষ্ঠা, সততা ও সাহসের সঙ্গে নেতৃত্ব দিয়ে, অত্যাচার-অবিচার, জেল-জুলুম সহ্য করে গণরায়ে অভিষিক্ত করে চারবার সরকারে অধিষ্ঠিত হয়ে রাষ্ট্র পরিচালনায় যোগ্যতার স্বাক্ষর রেখেছেন। আগরতলা মামলায় জাতির জনক কারারুদ্ধ থাকাবস্থায় অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে তিনি বিশিষ্ট বিজ্ঞানী ড. ওয়াজেদ মিয়ার সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। ব্যক্তিগত জীবনে আইটি বিশেষজ্ঞ পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয় ও অটিজম বিশেষজ্ঞ কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুলের গর্বিত জননী তিনি।

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৭তম অধিবেশনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী জন্মদিনে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন। প্রধানমন্ত্রী তাঁর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পদাঙ্ক অনুসরণ করে গত ২৪ সেপ্টেম্বর অন্যান্য বিশ্বনেতাদের অংশগ্রহণে ইউএনজিএ’র সাধারণ আলোচনায় অন্যান্য বছরের মতো বাংলায় ভাষণ দেন।

তাঁর অনুপস্থিতিতেই দিনটি উৎসবমুখর পরিবেশে নানা কর্মসূচি উদযাপন করবে তাঁর নেতৃত্বাধীন দল আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আওয়ামী লীগ আজ বিকাল ৩টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আলোচনা সভার আয়োজন করেছে।

১৯৭৫-এর মর্মন্তুদ ঘটনার পর আওয়ামী লীগ যখন ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছিল তখন তিনি দলের হাল ধরেন। সমগ্র সমাজ ও রাষ্ট্রব্যবস্থা তখন সামরিক শাসকের দুঃশাসনে নিপতিত। স্বৈরশাসনের অবসান ঘটাতে তিনি জাতিকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। ’৮১-এর সম্মেলনে সবাই ধরে নিয়েছিল আওয়ামী লীগ বিভক্ত হয়ে যাবে। আমরা জীবনপণ চেষ্টা করে সব ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে দলের ঐক্য ধরে রেখে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার ওপর দলের নেতৃত্বভার অর্পণ করে তার হাতেই তুলে দিয়েছিলাম আওয়ামী লীগের রক্তে ভেজা সংগ্রামী পতাকা।

’৮১-এর ১৩ থেকে ১৫ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে অনেক আলাপ-আলোচনার পর জাতীয় ও দলীয় ঐক্যের প্রতীক হিসেবে তার অনুপস্থিতিতে তাকে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। যেদিন তিনি প্রিয় মাতৃভ‚মিতে ফিরে এলেন সেদিন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা মনে করেছিল শেখ হাসিনার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুকেই ফিরে পেয়েছে। ’৮১-এর ১৭ মে নির্বাসন শেষে স্বজন হারানোর বেদনা নিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রিয় মাতৃভ‚মিতে প্রত্যাবর্তন করেন। যেদিন প্রিয় নেত্রী স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে আসেন সেদিন শুধু প্রাকৃতিক দুর্যোগ ছিল না, ছিল সর্বব্যাপী সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় দুর্যোগ। মাত্র ৩৪ বছর বয়সে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। তিনি স্বেচ্ছায় আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে আসেননি।

দলীয়-জাতীয় ঐক্যের বৃহত্তর ও মহত্তর প্রয়োজনে তার আগমন এবং নেতৃত্ব গ্রহণ। নেতৃত্ব গ্রহণের পর তাকে বারবার হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। মৃত্যুঝুঁকি নিয়েই তিনি রাজনীতি করছেন। কোনো পদ বা ক্ষমতা নয়, বরং পিতার মতোই বাংলার দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাতেই দলীয় নেতাকর্মীদের প্রস্তাবে শহীদের রক্তে ভেজা দলীয় ও জাতীয় পতাকা স্বহস্তে তুলে নিয়েছেন। প্রমাণ হয়েছে সেদিনের কাউন্সিল অধিবেশনে গৃহীত আমাদের সিদ্ধান্তটি ছিল ভবিষ্যতের জন্য অপরিহার্য।

তার মেধা, প্রজ্ঞা, বিচক্ষণতা, অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক  দৃষ্টিভঙ্গি তাকে  পরিচিত করেছে এক সফল রাষ্টনায়ক হিসেবে। তার নেতৃত্বে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় দুই হাজার ৮২৪ ডলার করার পাশাপশি খাদ্যে আত্মনির্ভরশীলতা অর্জন করেছে বাংলাদেশ। ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিয়ে, মাতৃমৃত্যু হার হ্রাসে উপমহাদেশে সবোর্চ্চ স্থান দখল করে, নারীর ক্ষমতায়ন এবং নারী শিক্ষায় প্রতিবেশী দেশের তুলনায় এগিয়ে গিয়ে- গত এক যুগে বাংলাদেশ জাগিয়েছে পৃথিবীর বুকে বিস্ময়। পুরোধা তো শেখ হাসিনাই।

তার নেতৃত্বে এক যুগে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণ, গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণ, ঢাকা মহানগর উড়াল রেল, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ, শতবর্ষ মেয়াদী ডেল্টা প্লান, ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে শিল্পোন্নত দেশে পরিণত করা এবং সে পরিকল্পনা বাস্তবায়নে প্রেক্ষিত পরিকল্পনা প্রণয়ন, নতুন শিক্ষানীতি প্রণয়ন, প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের প্রতিবছর বিনামূল্যে বই প্রদান, বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনের মধ্য দিয়ে বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে স্যাটেলাইট যুগে প্রবেশ করেছে বাংলাদেশ।

জাতিসংঘের সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট সলিউশন্স নেটওয়ার্ক (এসডিএসএন) দারিদ্র্য দূরীকরণ, পৃথিবীর সুরক্ষা এবং সবার জন্য শান্তি ও সমৃদ্ধি নিশ্চিত করতে পদক্ষেপ গ্রহণের সার্বজনীন আহ্বানে সাড়া দিয়ে বাংলাদেশকে সঠিক পথে অগ্রসরের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘এসডিজি অগ্রগতি পুরস্কার’ দেওয়া হয়েছে। সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যের (এমডিজি) বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফলতা অর্জনের পর টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে দ্রুত এগিয়ে চলার ক্ষেত্রে দেশকে তিনি জাতিসংঘের এমডিজি পুরস্কার এনে দিয়েছেন।

বিশ্বনন্দিত নেত্রী শেখ হাসিনার নিরলস প্রচেষ্টা ও অনুপ্রেরণায় ইউনেস্কোর তালিকায় বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষার স্বীকৃতিসহ ক্রিকেট বিশ্বের সাফল্য পেয়েছে। ফুটবলেও সাফল্যে মুকুট ছিনিয়ে এনেছে বাংলার নারীরা, হয়েছে সাফ চ্যাম্পিয়ান।

বাংলাদেশের পলিমাটিতে মানুষ হওয়া শেখ হাসিনা দেশে ফিরেছিলেন এবং তার দূরদর্শী নেতৃত্বে দেশকে এগিয়ে নিয়েছেন সাফল্যের স্বর্ণচূড়ায়। একজন মমতাময়ী মায়ের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিটি চিন্তায় দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানো। এটিই তার ধ্যান-জ্ঞান। এমন একজন প্রধানমন্ত্রীর বলিষ্ঠ নেতৃত্ব বারে বারে এদেশে প্রয়োজন, এমন ব্যক্তিত্বসম্পন্ন নেতৃত্বের বিকল্প নেই।

বিএনএ/এমএফ

Loading


শিরোনাম বিএনএ