শামিকে প্রতিমাসে ৫০ হাজার রুপি দিতে হবে হাসিনকে

স্পোর্টস ডেস্ক: ভারতীয় দলের ক্রিকেটার মোহাম্মদ শামির বিরুদ্ধে তার স্ত্রী ও মডেল হাসিন জাহানের করা মামলায় আদালত রায় দিয়েছেন সোমবার (২৩ জানুয়ারি)। বিচারক জানিয়েছেন, হাসিনকে প্রতি মাসে ৫০ হাজার রুপি করে দিতে হবে শামির।

আরো পড়ুন

কাঁদারও লোক নেই

আলিপুর আদালতের রায়ের পর ফের শিরোনামে জায়গা করে নেন তারা। বিয়েবিচ্ছেদের মামলায় ক্রিকেটারের কাছে প্রতিমাসে ১০ লাখ রুপি দাবি করেছিলেন হাসিন। তবে বিচারক ৫০ হাজার করে দেয়ার রায় দেন।

২০১৮ সাল থেকে হাসিনের সঙ্গে সমস্যা শুরু হয় শামির। ওই বছরই গার্হস্থ্য হিংসাসহ একাধিক অভিযোগ তুলে ক্রিকেটারে বিরুদ্ধে আদালতে যান হাসিন।

শামি ও হাসিনের মধ্যে বয়সের পার্থক্য ১০ বছরের। শামির চেয়ে হাসিন ১০ বছরের বড়। বয়সের এই মাপকাঠি কখনোই প্রেমে বাধা হয়ে দাঁড়ায়নি তাদের মধ্যে।

দু’বছর ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্বের পর গাঁটছড়া বাঁধেন দু’জন। এর আগে তাদের পরিচয় হয় ২০১২ সালে আইপিএল চলাকালীন। সেই সময় শামি ক্রিকেটার কলকাতা নাইট রাইডার্সে খেলতেন।

মডেল হাসিনের সঙ্গে পরিচয়ের পর ধীরে ধীরে বন্ধুত্ব গভীর হয় তাদের। বছর দুয়েক প্রেমের সম্পর্কে ছিলেন তারা। এরপর ২০১৪ সালে বিয়ে করেন। পরের বছর জুলাইয়ে কোলজুড়ে আসে কন্যাসন্তান আইরা। শুরুতে সংসারে কোনো সমস্যা না থাকলেও বিয়ের চার বছরের মাথায় তিক্ততা আসে। স্বামীর বিরুদ্ধে মারধরের অভিযোগ তুলেন হাসিন।

হাসিনের অভিযোগ ছিল, ম্যাচ ফিক্সিংয়ে যুক্ত শামি। পাকিস্তানি এক নারীর কাছ থেকে অর্থ নিয়েছিলেন। একাধিক নারীর সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্কেও জড়িয়েছেন। এমন নানা অভিযোগের পর ভারতীয় দলের সঙ্গে ক্রিকেটারের চুক্তি বাতিল করে বিসিসিআই। যদিও পরে শামির সঙ্গে ফের চুক্তি করে ক্রিকেট বোর্ড। একই সঙ্গে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের অভিযোগ তদন্তে ক্লিনচিট পান শামি।

ক্রিকেটার ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড় ছিল মডেলের। পুলিশকে তিনি জানিয়েছিলেন, শামির পরিবারের সদস্যরা তাকে খুন করার চেষ্টা করছেন।

এছাড়া শামির বড়ভাইয়ের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগও এনেছিলেন হাসিন। আরও অভিযোগ ছিল বেঙ্গালুরু, পুণে ও নাগপুরের নারীদের সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে তার স্বামীর। লন্ডনের এক ব্যবসায়ীর সূত্রে ওসব নারীদের সঙ্গে পরিচয় হয়েছে বলেও দাবি করেছিলেন।

শামির সঙ্গে কথোপকথনের স্ক্রিনশট ও ফোন কলের রেকর্ডিং প্রমাণ হিসেবে পুলিশের কাছেও হাজির করেছিলেন মডেল। দাবি করেছিলেন, দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের পর দুবাইতে গিয়ে এক নারীর সঙ্গে দেখা করেন ক্রিকেটার। কিন্তু স্ত্রীর সব অভিযোগই অস্বীকার করেছিলেন বোলার। জানিয়েছিলেন, তার খ্যাতি ও ক্যারিয়ার নষ্ট করার জন্যই এসব মিথ্যা অভিযোগ করছেন হাসিন।

বিএনএনিউজ২৪/এমএইচ