আফগানিস্তানে তীব্র ঠাণ্ডায় ৭০ জনের মৃত্যু

বিএনএ, বিশ্বডেস্ক: আফগানিস্তানে তীব্র শীতে কমপক্ষে ৭০ জন মানুষ এবং ৭০ হাজার গবাদিপশুও প্রাণ হারিয়েছে।আফগানিস্তানের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় এই খবর দিয়েছে।

আরো পড়ুন

আজ রাজধানীতে যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর চীন সফর স্থগিত

বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শৈত্যপ্রবাহ এবং ব্যাপক ঠান্ডা আবহাওয়ার কারণে গত সপ্তাহে আফগানিস্তানজুড়ে ৭০ জন প্রাণ হারিয়েছেন এবং আরও ৭০ হাজার গবাদি পশু মারা গেছে। বুধবার আফগান মন্ত্রণালয় এই তথ্য জানিয়েছে। গেল সপ্তাহ থেকে দেশটির রাজধানী কাবুলসহ অন্যান্য বেশ কয়েকটি অঞ্চলে তাপমাত্রার পারদ হিমাঙ্কের নিচে নেমে গেছে। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে মাইনাস ৩৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

স্থানীয় বিভিন্ন সংস্থার মতে, এবছর শীতে দেশের ৩৮ মিলিয়ন মানুষের মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি মানুষ ক্ষুধার্ত অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে, এবং প্রায় ৪ মিলিয়ন শিশু অপুষ্টিতে ভুগছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিদের মতে, গত ২৮ দিনে তারা দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে শৈত্যপ্রবাহে ক্ষতিগ্রস্ত অন্তত ৫০০০ পরিবারকে খাদ্য ও ত্রাণ প্যাকেজ প্রদান করেছে।

আফগানিস্তানের আবহাওয়া অফিসের প্রধান মোহাম্মদ নাসিম মুরাদি বলেন, ‘সাম্প্রতিক বছরগুলোর মধ্যে চলতি বছরের শীতকাল এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি শীতল। চলমান এই শৈত্যপ্রবাহ আরও এক সপ্তাহ বা তারও বেশি সময় ধরে চলবে বলে আশঙ্কা করছি আমরা।’

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ছবি ও ভিডিওতে দেখা যায়, আফগানিস্তানের মধ্য ও উত্তরাঞ্চলের কয়েকটি প্রদেশে ভারী তুষারপাত হচ্ছে। এতে জনজীবনে দেখা দিয়েছে স্থবিরতা।

২০২১ সালের আগস্টে আফগানিস্তানের ক্ষমতায় আসে তালেবান। এরপর থেকে নানা অস্থিরতা ও মানবিক সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে দেশটি। সবশেষ তথ্য অনুযায়ী দেশটির মোট ৩ কোটি ৮০ লাখ জনসংখ্যা অর্ধেকের বেশিই খাদ্য সংকটের মুখে পড়েছে। তালেবান ক্ষমতা দখল করায় বিশ্বের অধিকাংশ দেশ ও আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থাগুলো আফগানিস্তানে মানবিক সহায়তা ও অর্থসহায়তা পাঠানো বন্ধ করে দেয়। এ ছাড়া পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা ও অন্যান্য দেশের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক না থাকায় পরিস্থিতি আরও জটিল হয়েছে।

বিএনএ/এমএফ