Bnanews24.com
Home » মুনিরীয়ার ভণ্ডামি-৬
বিশেষ সংবাদ

মুনিরীয়ার ভণ্ডামি-৬

।।ইয়াসীন হীরা।।

একমাত্র মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি, বাংলাদেশ’র ত্বরিকতই সারা বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে পারে! যা পারেনি জাতিসংঘসহ বিভিন্ন সংগঠন।২০০৮ সালে এক গাউছুল আজম কনফারেন্সে মওলানা সাইদুল হক এমনটা দাবি করেন।

তিনি বলেন, শান্তির জন্য মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি, বাংলাদেশ এবং এর প্রতিষ্ঠাতা গাউছুল আজম (শায়খ তফজ্জল আহমদ) নোবেল পুরস্কার পাওয়ার উপযুক্ত।কিন্তু তার সংগঠন ও পীরকে নোবেল পুরস্কার দেয়া হয়নি। এক ভিডিওতে দেখা যায় মওলানা সাইদুল হক নোবেল পুরস্কারের দাবি জানান।

প্রসঙ্গত: ২০০৬ সালের ১৩ অক্টোবর নরওয়ের নোবেল পিস প্রাইজ কমিটি নোবেল শান্তি পুরস্কার ঘোষণা করেন। এ পুরস্কার পান বাংলাদেশের ক্ষুদ্র ঋণের জনক ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও তার প্রতিষ্ঠিত গ্রামীণ ব্যাংক। তার বাড়ি চট্টগ্রামের হাটহাজারি উপজেলায়। হাটহাজারীর সীমান্ত উপজেলা রাউজান। ওই সময়ে ড. ইউনূচ’এ নোবেল শান্তি পুরস্কার পাওয়ার বিষয়টি দেশ-বিদেশে ব্যাপকভাবে আলোচনায় আসে। সে প্রেক্ষাপটে কাগতিয়া দরবারের পীর ও মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা শায়খ তফজ্জল আহমদ এর জন্য ‘নোবেল পুরস্কার’ দাবি করা হয়েছে!

শান্তিতে নোবেল পুরস্কার দাবির ৯ বছর পর ২০১৭ সালে দাবি উঠেছে মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি, বাংলাদেশ একটি জঙ্গি সংগঠন। তাদের অনুসারিরা জঙ্গী কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ২০১৭ সালের ১৬ জুলাই সাভারের আশুলিয়ার পাথালিয়া ইউনিয়নের চৌরাবালি এলাকায় ‘জঙ্গি আস্তানা’ থেকে চারজন জঙ্গি কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন ‌(র‌্যাব)। এদের একজন রাউজানের ইরফানুল ইসলাম সুফিয়ান খান ওরফে ইরফান। সে রাউজান উপজেলার কদলপুর ইউনিয়নের নওয়াজিস উকিলের বাড়ি প্রকাশ (কুয়াইশ) মীরের বাড়ির রফিকুল ইসলামের ছেলে। সে মুনিরীয়া তরিকত্বের জড়িত।

মুনিরীয়ার ভণ্ডামি-০৫

র‌্যাব এর হাতে গ্রেফতার ইফরান

আশুলিয়ার চৌরাপাড়ার জঙ্গি আস্তানা থেকে ২ টি বিদেশি পিস্তল ও ম্যাগাজিন, ৩টি বোমা উদ্ধার করা হয়। এছাড়া উদ্ধার করা হয়েছে বিপুল পরিমাণ জিহাদি বই, ৮টি সিডি, পেনড্রাইভ ও ল্যাপটপ।অভিযানের আগে র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ও বোমা নিক্ষেপ করে জঙ্গীরা পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চালায়।

অনুসন্ধানে জানা আরো জানা যায়, গত ২০১৮ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি কদলপুর ইউনিয়ন পরিষদ  চেয়ারম্যান মোহাম্মদ তছলিম উদ্দিন চৌধুরীর স্বাক্ষরে প্রদত্ত  প্রত্যয়নপত্রে দেখা যায়, ওই ইরফান মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির ২৫ নম্বর কদলপুর শাখার সক্রিয় সদস্য।

চেয়ারম্যান মোহাম্মদ তছলিম উদ্দিন চৌধুরীর   প্রত্যয়নপত্র

এছাড়া মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির ২৫ নম্বর কদলপুর শাখার সভাপতি এস.এম খালেদ আনছারী স্বাক্ষরিত অপর একটি প্রত্যয়নপত্রে ইরফানকে ওই কমিটির সক্রিয় সদস্য হিসেবে প্রত্যয়ন করা হয়েছে।

এতে বলা হয়, ইরফানুল ইসলাম সুফিয়ান খান ওরফে ইরফান ওই শাখার মাধ্যমে মুনিরীয়া তরিকতের খেদমত করে আসছে।বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাউজান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জমির উদ্দিন পারভেজ ।

আরো পড়ুন :

মুনিরীয়ার ভণ্ডামি-০৫

মুনিরীয়ার ভণ্ডামি-৪
মুনিরীয়ার ভণ্ডামি-৩
মুনিরীয়ার ভণ্ডামি-২
মুনিরীয়ার ভণ্ডামি-১